সামরিক হেলিকপ্টার নিয়ে শ্বশুরবাড়ি যা’ত্রা তা’লি’বা’ন কমান্ডারের, এহেন কা’ণ্ডে হ’ত’বা’ক পু’রো বিশ্ব

আফগানিস্তানে ভয়াবহ ভূমিকম্পে জেরে ইতিমধ্যে উদ্ধারকাজে নেমেছেন প্রশাসনসহ জেহাদী সরকার। কিন্তু উদ্ধারকাজের নামে হচ্ছে প্রহসন। ভূমিকম্পের ফলে যে সমস্ত এলাকা বিধ্বস্ত হয়ে গেছে সেই সমস্ত এলাকার উদ্ধারকাজ ব্যাহত হচ্ছে কারণ জেহাদী সরকারের দাবিতে তাদের কাছে খাবার এবং ওষুধ দেওয়ার মতো পর্যাপ্ত পরিমাণ নেই যার কারণে ইতিমধ্যেই আহতদের এখনো উদ্ধার করা হয়নি।

এরকম অবস্থাতেই এক তালেবান কমান্ডার হেলিকপ্টারে করে শ্বশুরবাড়ি যাত্রা করলেন এই সফর নাকি নতুন বউকে আনার জন্যই এই খবর পাওয়া গেছে আফগানের একটি সংবাদমাধ্যমে তরফ থেকে।

খবর সূত্রে জানা যায় এইরকম অবস্থায় এক সামরিক হেলিকপ্টারে করে তালিবান কমান্ডার যান শ্বশুরবাড়িতে তার বউকে আনতে এবং বউকে নিয়ে তিনি তাঁর নিজের বাড়ি খোস্ত দেশে ফিরে যান।

এই তালেবানকমান্ডার নাকি অত্যন্ত প্রভাবশালী এবং হক্কানী নেটওয়ার্ক গোষ্ঠীর একজন সদস্য। খবর সূত্রে জানা যায় শনিবার লোগার প্রদেশের সমাচার এলাকার একটি বাড়ির পাশে ওই তালিবান কমান্ডারের হেলিকপ্টারটির নামে ওই কমান্ডার তার শশুরকে প্রায় ১২ লক্ষ আফগান মুদ্রা উপহার হিসেবে দিয়েছেন, এমনকি প্রচুর অর্থ তিনি নিজের বিয়েতে ব্যয় করেছেন এই তালিবান কমান্ডারের যাত্রার ভিডিওটি ভাইরাল হয়।

আরো পড়ুন: মা’ঝ আকাশে ভাসমান হোটেল, ক্যাপাসিটি ৫০০০ যাত্রী! দেখুন সেই হোটেলের ভিডিও

সোশ্যাল মিডিয়ায় স্থানীয়দের অনেকের মতে যেখানে এই রকম অবস্থা যাতে মানুষ খেতে পারছে না সঠিকভাবে ওষুধ পাচ্ছে না সেখানে এই হেলিকপ্টারে করে এই তালেবান কমান্ডার কি করে আনন্দ করে বেড়াচ্ছে। সরকারের টাকা ব্যয় করছে বলে অভিযোগ করেছেন অনেকে।

যদিও এই দাবিকে একদমই নাকচ করেছেন জিহাদী সংগঠনের এক মুখপাত্র কারী ইউসুফ আহমদী তার মতে এইরকম মিথ্যা কথা বলে তালেবানদের বদনাম করা হচ্ছে।

এগুলো আসলে শত্রুপক্ষের ষড়যন্ত্র বেশি ব্যয় আটকানোর কারণে তালেবান যোদ্ধাদের বহুবিবাহ থেকে বিরত থাকার কথা বলা হয়, এই নির্দেশ দেন সংগঠনের আমীর বা প্রধান হায়বাতুল্লাহ আখুন্দজাদা।

তালিবান সরকার ২০২১ থেকেই একাধিক বিয়ের জন্য নিষেধাজ্ঞা জারি করেন তাদের সংস্থার সদস্যদের। তালিবানদের এই শীর্ষ নেতৃত্বের দাবি যদি বিয়ে প্রচুর করা হয় তবে সেক্ষেত্রে প্রচুর টাকা খরচ হয় তার ফলে নানান রকমের সমালোচনা চারিদিক থেকে আসতে পারে।