সারাজীবনই বেঁ’চে থাকবে ক’রো’না ভা’ই’রা’স, পৌঁছাবে এন্ডেমিক স্ত’রে: ICMR

বিগত প্রায় দেড় বছরেরও বেশি সময় ধরে সারা বিশ্বজুড়ে করোনা মহামারী ব্যাপক আকার ধারণ করেছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে করোনা ভাইরাস বিশ্ব থেকে কবে নির্মূল হবে, তা জানার জন্য উদগ্রীব সাধারণ মানুষ। যতদূর জানা যাচ্ছে, আর মাত্র কয়েক মাসের মধ্যেই ভারতবর্ষে করোনার তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়বে। এই পরিস্থিতিতে কবে সবকিছু আবার স্বাভাবিক হবে? এই প্রশ্ন উঠছে সাধারণ মানুষের মনে। তবে চিকিৎসা বিশেষজ্ঞরা কিন্তু খুব একটা আশার কথা শোনাচ্ছেন না।

চিকিৎসা বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, করোনাভাইরাস পৃথিবী থেকে একেবারে নির্মূল হওয়ার সম্ভাবনা নেই। বরং এই মহামারী করোনা ধীরে ধীরে এনডেমিকে পরিণত হবে। এরপর করোনা বদলে যাবে ইনফ্লুয়েঞ্জাতে। হবে ততদিন অবশ্য সেই ভাইরাস নির্দিষ্ট একটি এলাকার মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকবে। সারা বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা কম। করেনা ভাইরাসের সংক্রমণের হাত থেকে মুক্তি পেতে তাই আগামী দিনে বয়স্ক ব্যক্তিদের প্রতি বছর করোনার টিকা নিতে হবে বলে জানাচ্ছে আইসিএমআর।

আইসিএমআরের এপিডেমিওলোজি বিভাগের কর্তা ডক্টর সমীরণ পান্ডা জানালেন, আজ থেকে প্রায় ১০০ বছর আগে ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাস অতিমারীর আকার ধারণ করেছিল। তবে বর্তমানে এই রোগ আঞ্চলিক রোগে পরিণত হয়েছে। ইনফ্লুয়েঞ্জার মতোই করোনাভাইরাস আগামী দিনে এনডেমিক রোগে পরিণত হবে। এবং সেটি আঞ্চলিক স্তরের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকবে। আগামী দিনে করোনাভাইরাস যখন ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাসের মত ইন্ডিয়ামিকে পরিণত হবে তখনও কিন্তু টিকাকরণের ওপর বিশেষ গুরুত্ব দিতে হবে বলে দাবি আইসিএমআর কর্ণধারদের।

আইসিএমআরের অধিকর্তাদের দাবি, সারাবিশ্ব টিকার অনুমোদনের জন্য অপেক্ষা না করে বরং দেশে তৈরি করেনা টিকা নিতে হবে। বয়স্কদের পাশাপাশি সদ্য মায়েদেরও টিকা নিতে হবে বলে জানানো হয়েছে। সে ক্ষেত্রে অবশ্য শিশুদের স্তন্যপান করানো কালে মায়ের শরীর থেকে অ্যান্টিবডি শিশুর শরীরে প্রবেশ করবে বলে জানানো হয়েছে। অতএব শিশুদের আর আলাদা করে টিকা নেওয়ার প্রয়োজন পড়বে না।