মুসলিমদের ভারতীয় না মা’ন’লে আ’প’নি হিন্দু ন’ন: মোহন ভাগবত

সাম্প্রদায়িকতার ঊর্ধ্বে উঠে হিন্দু-মুসলিমের ঐক্যের পক্ষে সওয়াল করলেন রাষ্ট্রীয় স্বয়ং সেবক সঙ্ঘের প্রধান মোহন ভাগবত। সম্প্রতি, গাজিয়াবাদে মুসলিম রাষ্ট্রীয় মঞ্চের আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মোহন ভাগবত। এই অনুষ্ঠানের থিম ছিল, “হিন্দুস্তানি ফার্স্ট, হিন্দুস্থান ফার্স্ট”। সেখানেই তাকে বক্তব্য রাখার জন্য মঞ্চে আহ্বান করা হয়। মঞ্চে উঠেই হিন্দু-মুসলিমের সম্প্রীতি নিয়ে বার্তা দিলেন মোহন ভাগবত।

এদিন তিনি বলেন, হিন্দু এবং মুসলিমদের ধর্ম আলাদা হতেই পারে, তবে তারা কখনোই আলাদা নন। প্রত্যেকের ডিএনএ এক। প্রত্যেকেই আমরা ভারতবাসী। পাশাপাশি ইসলাম ধর্মের অনুরাগীরা আশ্বস্ত করে তিনি বলেছেন, ভারতে ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের ক্ষতি হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। এই নিয়ে আশঙ্কা করার কোনো কারণ নেই বলে তিনি জানিয়েছেন। ইসলাম ধর্মের অনুরাগীদের প্রতি তার বার্তা, আতঙ্কের ফাঁদে যেন কেউ পা না দেন।

মুসলিমদের দেশছাড়া করার হুমকি, তাদের পিটিয়ে মেরে ফেলার অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতেও গর্জে উঠেছেন মোহন ভাগবত। তার দাবি, যদি কেউ ইসলাম ধর্মের অনুরাগীদের দেশছাড়া করার হুমকি দেন তাহলে তিনি নিজেও হিন্দু নন। তবে অবশ্য গো-হত্যা নিয়েও তিনি কড়া বার্তা দিয়েছেন। তার দাবি, গোরু পবিত্র প্রাণী। বিনা বিচারে হত্যা হিন্দুত্বের আইনের বিরোধী। সে ক্ষেত্রে আলাদা আইন রয়েছে।

এদিন তিনি আরো বলেছেন, ভারতবর্ষে গণতন্ত্র চলে। এই দেশে হিন্দু মুসলিম বলে আলাদা কেউ নেই। সকলেরই একটাই পরিচয়, সকলেই ভারতবাসী। সবশেষে তার বক্তব্য, ভোটের রাজনীতি করতে তিনি এমন বক্তব্য রাখছেন না। তবে তিনি যাই বলুন না কেন, তার এই বক্তব্য এবং সামনেই উত্তরপ্রদেশের বিধানসভা নির্বাচনের প্রেক্ষাপট কিন্তু রাজনৈতিক মহলে নতুন তরজা সৃষ্টি করেছে। যোগী সরকারের গায়ে আগে থেকেই মুসলিম বিরোধী তকমা লেগে আছে। রাজনৈতিক মহলের তা অজানা নেই।