Acid ছু’ড়ে মুখ ঝ’ল’সে দিয়েছিল, সেই হামলাকারীকেই বি’য়ে আ’ক্রা’ন্ত তরুণীর

অ্যাসিড আক্রান্ত যুবক-যুবতীর কথা আমরা বহুবার শুনেছি। এক লহমায় যে জীবন শেষ হয়ে যায়, সে কথা জেনেছি বহুবার। কিন্তু আক্রমণকারীকে স্বেচ্ছায় বিয়ে করলেন এক আক্রান্ত যুবতী, এমন কথা শোনা যায় না। সম্প্রতি এই ঘটনাটি সোশ্যাল-মিডিয়ায়-ভাইরাল হবার পর সমালোচনার ঝড় উঠেছে সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে। এত বিতরকের মধ্যেও মুখ খুলতে রাজি হননি ওই তরুণী। যদিও নিজের মেয়ের সিদ্ধান্তে ভীষণভাবে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন মেয়ের বাবা।

2019 সালে তুরস্কের কুড়ি বছর বয়সী যুবতী বারফিন অজেকের মুখে এসিড ছুড়ে মেরেছিল প্রাক্তন প্রেমিক কাসিম অজান সেল্টি। দুজনের বিচ্ছেদ হয়ে যাবার পর এই অপরাধ ঘটিয়েছিল বই প্রেমিক। মেয়েটির বয়ানের ভিত্তিতে পুলিশ কাসিমকে গ্রেপ্তার করেছিল। ১৩ বছরের সাজা দেওয়া হয় তাকে। অবশেষে নিজের ভুলের জন্য ক্ষমা চান কাসিম। এরপরে বহুবার ওই মেয়েটিকে মেসেজ এবং ফোন করে ক্ষমা চেয়ে নেন কাসিম। তারপরই কাসিমের বিরুদ্ধে আনা সমস্ত অভিযোগ প্রত্যাহার করে দেয় ওই মেয়েটি। পুরোপুরি মুক্ত হয়ে যায় কাসিম।

সম্প্রতি সংবাদমাধ্যম থেকে খবর পাওয়া গেছে, আগামী এক থেকে দু মাসের মধ্যে বিয়ে করতে চলেছেন ওই তরুণ তরুণী। বিষয়টি জানার পর থেকেই নেটিজেনরা ওই তরুণীর বিরুদ্ধে ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন। অনেকেই সোশ্যাল মিডিয়া লেখেন, ক্ষমা চাওয়ার অপরাধ কমায় না। আমার মনে হয় এক বা দুই মাসের মধ্যে সবকিছু শেষ হয়ে যাবে। ওই যুবতীকে ওই যুবকের সঙ্গেই সারাজীবন থাকতে হবে যে তাকে নির্মমভাবে হত্যা করতে চেয়েছিল। এই প্রসঙ্গে যুবতীর বাবা জানান, আমি এ বিষয়ে কিছু জানি না। বছরের পর বছর লড়াই করেছিলাম সবকিছু তছনছ হয়ে গেল। যদিও এত সমালোচনার পরে ওই তরুণী নিজের সিদ্ধান্তে অনড় রয়েছেন এবং সংবাদমাধ্যমের সামনে কোনো কথা বলেননি তিনি।