এ নিয়ে তৃতীয়বার বিবাহ বিচ্ছেদের পথ বেছে নিলেন কিম কার্দাশিয়ান

দীর্ঘদিনের সম্পর্ক ভাঙতে চলেছে। টানা ছয় বছরের দাম্পত্য জীবন ভেঙ্গে বেরিয়ে আসছেন অভিনেত্রী তথা মডেল কিম কার্দাশিয়ান। দীর্ঘদিন স্বামী কেনি ওয়েস্টের পর অবশেষে বিবাহ বিচ্ছেদের মামলা করলেন তিনি।

প্রতিদিন নিজেদের মধ্যে মতবিরোধ হবার ফলে এরকম পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হয়েছেন কিম। তাই অবশেষে আলাদা থাকার সিদ্ধান্ত নিলেন তিনি।যদিও তাদের চার সন্তানের দেখভাল এর স্বার্থে জয়েন্ট কাস্টিদির আবেদন করেছেন এই দম্পতি।

এই দম্পতি তাদের বিবাহ বিচ্ছেদের খবর প্রকাশে না নিয়ে এলে ও তাদের ঘনিষ্ঠ মহল থেকে জানা গেছে যে, বেশ কয়েক মাস ধরেই তারা আলাদা থাকছেন। শুধুমাত্র সন্তানের কথা ভেবে এখনো পর্যন্ত নিজেদের মধ্যে দেখা সাক্ষাৎ করছেন তারা। তাদের সম্পর্কের মধ্যে আর যে কিছু নতুনত্ব নেই, তা খুব ভালো করেই বুঝে গেছেন দুজনেই।

২০১২ সাল থেকে একে অপরের সঙ্গে প্রেমের বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন এই সেলেব জুটি। ২০১৪ সালে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন তারা।

দীর্ঘ ছয় বছরের দাম্পত্য জীবনে তাদের সন্তান রয়েছে চারটি। তাদের নাম যথাক্রমে নর্থ, সেন্ট, শিকাগো এবং পাম। তবে গত এক বছর ধরে তাদের সম্পর্কে চিড় ধরেছিল।

গত বছর জুলাই মাসে প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্টের হয়ে এটি নির্বাচনী প্রচারে এসে কেনি বলেছিলেন যে, তার প্রথম সন্তান কে নষ্ট করে দিতে চেয়েছিলেন তিনি। শুধু মাত্র এখানেই শেষ নয়, তিনি আরো অভিযোগ করেছিলেন যে, তাকে বহুদিন তালাবন্ধ করে রেখেছিলেন তার স্ত্রী। বহুদিন এইভাবে থাকার পর বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত হয়ে পড়েছেন তিনি।

তবে কিম নিজের একটি বিবৃতি জারি করে লিখেছিলেন, একটি অসাধারণ মানুষ আমার স্বামী। কিন্তু একই সঙ্গে খুবই জটিল। একজন শিল্পী এবং কালো মানুষ হবার চাপ সব সময় এটি মানুষের মধ্যে থাকে।

এইভাবেই আস্তে আস্তে বাইপোলার ডিসঅর্ডারের শিকার হয়েছে সে। মনের মধ্যে যা চলতে থাকে তা বাইরের কাউকে প্রকাশ করে না ও।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এর আগেও সংগীত প্রযোজক দেমস থমাসকে বিয়ে করেছিলেন কিম। তবে মাত্র কয়েক মাসের মধ্যেই বিচ্ছেদ হয়ে যায় সেই বিবাহের। এরপর নতুন করে কেমির সঙ্গে সংসার শুরু করে কিম। তবে অবশেষে এই বিবাহ বিচ্ছেদের দিকে চলে গেল।