প্রযুক্তি জগতে ক্রান্তি, ৩৫ বছর আগে আজকের দিনে আবিষ্কার হয়েছিল Windows 1.0

আজ থেকে ৩৫ বছর আগে প্রযুক্তির জগতে ক্রান্তি নিয়ে এসেছিল মাইক্রোসফট উইন্ডোজ ১.০। কম্পিউটারের জগতে এটাই ছিল প্রথম উইন্ডোজ প্ল্যাটফর্ম, যা কম্পিউটারের নকশাই বদলে দেয়। ১৯৮৫ সালের আগে আবিষ্কৃত কম্পিউটারগুলি ব্যবহারকারীদের ব্যবহারের জন্য বেশ জটিল ছিল। কিন্তু, ১৯৮৫ সালের ২০শে নভেম্বর মাসে মাইক্রোসফটের তরফ থেকে উইন্ডোজ ১.০ লঞ্চ করা হয়, যা ব্যবহারকারীদের মধ্যে ব্যাপক সাড়া ফেলেছিল।

উইন্ডোজ ১.০ ব্যবহারকারীদের জন্য প্রথম গ্রাফিক্যাল অপারেটিং সিস্টেম নিয়ে হাজির হয়। গ্রাফিক্সের প্রতি মানুষের আগ্রহ ছিল বরাবর। সেই দিক বিবেচনা করেই মাইক্রোসফট তাদের ডিস্ক অপারেটিং সিস্টেম তথা DOS এর পাশাপাশি উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম নিয়ে হাজির হয়। বলাবাহুল্য, কম্পিউটারে ব্যবহারকারীরা একযোগে সেদিন microsoft-এর এই নতুন উদ্যোগকে সমর্থন জানিয়েছিলেন। গত শুক্রবার সেই যুগান্তকারী দিনের ৩৫ বছর পূর্তি উদযাপিত হলো।

উইন্ডোজের প্রথম যে সংস্করণ ১.০ লঞ্চ করা হয়েছিল, তারমধ্যে এমএস ডসের ১৬ বিট-সেলের সুবিধা ছিল। উইন্ডোজ ১.০ সেই সময় অ্যাপেলের লিজা অপারেটিং সিস্টেমের প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে অবতীর্ণ হয়েছিল। উইন্ডোজ ১.০ তে এখনকার সংস্করণ গুলির মতো “উইন্ডোজ ওভারল্যাপিং” এর বৈশিষ্ট্য ছিল না। কম্পিউটার স্ক্রিনের উপর সকল ফিচার্স গুলি সারিবদ্ধ ভাবে রাখার ব্যবস্থা ছিল।

উইন্ডোজ ১.০তে ক্যালকুলেটর, ক্যালেন্ডার, কার্ড ফাইল, ক্লিপবোর্ড, ক্লক, ভিউয়ার কন্ট্রোল প্যানেল, নোটপ্যাড, পেইন্ট, টার্মিনাল এবং রাইটের মত কিছু সীমিত অ্যাপ্লিকেশন রাখা হয়েছিল। কম্পিউটার পরিচালনা করার জন্য মাউসের ব্যবস্থাও ছিল। উইন্ডোজ লঞ্চ হওয়ার পরেই সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস পৃথিবীর সবথেকে ধনী ব্যক্তিতে পরিণত হন। তবে ২০০১ সালের ২১শে ডিসেম্বরের প্রযুক্তির দুনিয়া থেকে বিদায় নেয় উইন্ডোজ ১.০।