বাড়ির মূল দরজায় কেনো ঝুলিয়ে রাখা হয় লঙ্কা ও লেবুর মালা? আছে কিছু গুরুত্ব, জানুন

আমাদের বাড়ি বা দোকান বা অফিসের দরজায় অনেক সময় লেবু লঙ্কা ঝুলিয়ে রাখতে দেখা যায়। আমরা সবাই মনে করি কুনজর থেকে এড়ানোর জন্য এই দরজার সামনে লেবু লঙ্কা বেঁধে দেওয়া হয়। ভারতের বিভিন্ন প্রান্তের বিভিন্ন স্তরের মানুষজন কুনজর বা কালা জাদুকে বিশ্বাস করে আসছেন প্রাচীনকাল থেকেই। মানুষজন বিশ্বাস করেছি এই লেবু লঙ্কা ব্যবহার করা হয় কুনজরকে দূরে রাখার জন্য। চলুন এবার জেনে নেওয়া যাক কোন কোন কাজ থেকে এড়ানোর জন্য লেবু লঙ্কা ব্যবহার করা হয়।

১) যখন পোকামাকড় তাড়ানোর জন্য কীটনাশক পদার্থ আবিষ্কৃত হয়নি তখন পোকামাকড়ের জন্য ব্যবহার করা হতো লেবু এবং লঙ্কা। পোকামাকড়ের হাত থেকে ঘরবাড়ি কে রক্ষা করার জন্য ঘরের মেন দরজায় লেবু এবং লঙ্কা ঝুলিয়ে রাখা হতো।

২) যখন ট্রেইন বাস চালু হয় তখন একান্ত থেকে অন্য প্রান্ত যাওয়ার জন্য মানুষ তার পাদুটোকে ব্যবহার করত। তখনকার রাস্তাঘাটের পরিস্থিতি খুব খারাপ ছিল বেশিরভাগ রাস্তায় ছিল জঙ্গলের মধ্য দিয়ে তাই জঙ্গলের মধ্য দিয়ে হাঁটতে হাঁটতে মানুষকে অনেক সময় বিষাক্ত সাপের কামড়াতো।

সাপে কামড়ালে যদি সেই সময় কাঁচালঙ্কা খাওয়া হয় তারপর কাঁচালঙ্কা খেয়ে যদি ঝাল লাগে তাহলে বুঝতে হবে সাপটি বিষধর ছিল না কিন্তু যদি এর বিপরীত প্রতিক্রিয়া হয় অর্থাৎ কেউ যদি না লাগে তাহলে জানতে হবে সাপটি বিষধর ছিল। এই কারণে আগেকার মানুষজন পথে-ঘাটে বেরুলে সঙ্গে লঙ্কা নিয়ে। রাস্তায় হাঁটতে হাঁটতে যখন ক্লান্ত হয়ে পড়তেন সেই সময় একটু লেবু জল খেয়ে ক্লান্তি কাটিয়ে আবার পথ চলার মত এনার্জি তৈরি করতেন সেই জন্য সাথে লেবুও নিয়ে বেরোতেন।

৩) পুরাণ অনুযায়ী সমৃদ্ধি দেবী হল মা লক্ষ্মী। লক্ষীর আরেক বোন অলক্ষী। মা লক্ষ্মী সংসারে এসে ধন-দৌলত সমৃদ্ধিতে বৃদ্ধি করে তাই তাকে মিষ্টি এবং ফল জাতীয় খাবার দিয়ে পূজা করা হয়। অপরদিকে সংসার থেকে অলক্ষী কে দূরে রাখার জন্য টক ঝাল জাতীয় খাবার দেওয়া হয়। এই কারণেই অনেক বারিবাদ দোকানের সামনে লেবু লঙ্কা ঝুলিয়ে রাখে।