বঙ্গোপসাগরে কবে দে’খা দেবে ঘূ’র্ণি’ঝ’ড়? পূ’র্বা’ভা’স দিয়ে দিলো হা’ও’য়া অ’ফি’স

আগেই আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছিল যে, আগামী এপ্রিল মাসে ভারতীয় সমুদ্র গুলিতে ঘূর্ণিঝড় হওয়ার কোন সম্ভাবনা নেই। এপ্রিল মাস প্রায় শেষ হতে চলেছে এখনো তেমন কোনো সম্ভাবনা দেখা যায়নি। কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দপ্তর আরো একবার জানিয়ে দিল যে, এই মাসের শেষ সপ্তাহ তে ঘূর্ণিঝড়ের কোনরকম সম্ভাবনা নেই। তবে মে মাসে বঙ্গোপসাগরে ঘূর্ণিঝড় তৈরি হতে পারে।

আবহাওয়া দপ্তর পরিবেশগত বৈশিষ্ট্য খতিয়ে দেখে জানিয়েছেন যে মহাসাগরীয় অঞ্চল এবং নিরক্ষীয় অঞ্চলে এই মাসে কোন রকম তৈরি হবে না কোন ঘূর্ণাবর্ত। এর পরের মাসে যেকোনো পরিস্থিতিতে ঘূর্ণাবর্ত তৈরি হওয়া এবং তার পরবর্তী কালে ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হবার সম্ভাবনা খুবই প্রবল। যেহেতু পরের মাস বর্ষার ঠিক আগেই থাকে তাই এই সময়ে ঘূর্ণাবর্ত তৈরি হওয়ার প্রবণতা উজ্জ্বল

সমুদ্র জুড়ে ঘূর্ণিঝড় আনুষ্ঠানিকভাবে তৈরি হয় মার্চ মাসে। জুন মাসের মাঝামাঝি পর্যন্ত ভারতে চলতে থাকে বর্ষার মৌসুম। এই সময় সমুদ্র জুড়ে নিম্নচাপের প্রভাব থাকে। তারপরে ঘূর্ণি ঝড়ের সম্ভাবনা খুবই প্রবল ভাবে বেড়ে যায়। কিন্তু এবারে এপ্রিল মাসের আবহাওয়া এতটাই শান্ত আছে যে, কোনরকম ঘূর্ণিঝড় হবার সম্ভাবনা নেই এই মুহূর্তে। তবে মার্চ মাস থেকে এপ্রিল মাসে কিছুটা হলেও গরমের প্রভাব বৃদ্ধি পেয়েছে।

মে মাসে ঘূর্ণিঝড় তৈরি হতে পারে বঙ্গোপসাগরে। এই ঝড় হলো এমন একটি বিস্ময়কর এবং শক্তিশালী প্রাকৃতিক দুর্যোগ যার এক সপ্তাহের বেশি প্রভাব থাকে। মাঝে মাঝে সুপার সাইক্লোন এর চেহারা নিয়ে ভারতের সমুদ্র গুলিতে ফুঁসে ওঠে এটি। তবে এখনও পর্যন্ত সেই রকম কোন ঝড়ের সম্ভাবনা নেই বলে জানানো হয়েছে।

এপ্রিল মাসে আরব সাগর থেকে বঙ্গোপসাগরের উপর যে ঘূর্ণি ঝড়ের সম্ভাবনা তৈরি হয়, সেগুলো ছাড়ার সময় না পান এবং বাংলাদেশের দিকে চলে যায়। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে পশ্চিমবঙ্গের দিকে ঝুঁকে পড়ে সেই ঝড় গুলি। যেমন ঘূর্ণিঝড় ফণী উড়িষ্যা উপকূলে আঘাত হেনেছিল। তারপর আমফানের কথা আলাদা করে বলতে লাগবে না আমাদের। সেই সমস্ত ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব বহুদিন বিদ্যমান ছিল আমাদের জীবনের ওপর।

এই বছরও সেই রকম কিছু ঘূর্ণাবর্ত তৈরি হতে পারে মে মাসে, এমন কথা জানিয়েছে কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দপ্তর। মে মাসে বঙ্গোপসাগরে একটি একটিভ ইন্টার টপিক্যাল কনভারসেশন জোনে রূপান্তরিত হয়। এইসময় ঘূর্ণাবর্ত ঘূর্ণিঝড়ে রূপান্তরিত হতে পারে। তবে পরবর্তী ১০ দিনের মধ্যে এইরকম ঘূর্ণিঝড় বিদ্যমান নয়। দক্ষিণ উপসাগরের উপযোগী একটি নিম্নচাপ তৈরি হয়েছে, কিন্তু এটি ঘূর্ণিঝড়ে রূপান্তরিত হতে পারবে না।