কবে ও কিভাবে তৈরি করা হয়েছিল রামসেতু? এবার উঠে আসবে আসল তথ্য, চলছে গবেষণা

ঠিক কতদিন আগে রাম সেতু তৈরি হয়েছিল? এটার কি কোন বিশেষ গুরুত্ব আছে? সে নিয়ে যথেষ্ট প্রশ্ন রয়েছে গবেষকদের মনে, সেই সমস্ত প্রশ্নগুলোর সমাধান করতেই শুরু করতে চলেছে। পরীক্ষা-নিরীক্ষা এবং এই গবেষণা করে বের করা হবে যে ভারত এবং শ্রীলঙ্কার মধ্যে যে সেতুটি রয়েছে সেটি কিভাবে তৈরি হয়েছে এবং সেটার জলের তলায় বা কি করে তৈরি করা হলো।

জানা গেছে যে এই রাম সেতুটির যথেষ্ট গুরুত্ব আছে অতীতে। এই সেতুটির কতটা গুরুত্ব রয়েছে, এবং সেটা কতটা সত্যি সেটা বের করতে গেলে অবশ্যই গবেষণা প্রয়োজন। এই গবেষণা করার অনুমতি দিয়েছে আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়ার অধীনস্থ একটি নৃতাত্ত্বিক গবেষণা পরিষদ।

এই রাম সেতু সম্পর্কে গবেষণা করার আবেদন করেছিল গোয়ার একটি কেন্দ্রীয় সামুদ্রিক বিজ্ঞান কেন্দ্র। যেভাবে এই গবেষণাটি শুরু করা হবে সেটি হলো রেডিও মেট্রিক যেটার মাধ্যমে জানা যাবে এই ভূখণ্ডটির বয়স কত হয়েছে। বেশিরভাগ বিজ্ঞানীরা এই কি মনে করেন যে এই ভূখণ্ডটি প্রায় কোরাল এবং ঝামা পাথর দিয়ে তৈরি করা।

যদিও এই ভূখণ্ডটি জলের তলায় রয়েছে। যদি এই ভূখণ্ডটির বয়স সম্পর্কে জানা যায়, তবে এটাও বোঝা যাবে যে রামায়ণের কাল কোন সময় ছিল। রেডিওমেট্রিক ব্যবস্থাটিতে একটি রেডিও একটিভ বিকিরণ থাকে যার মাধ্যমে যে কোন বস্তুর বয়স সম্পর্কে ধারণা করা যায়। অনেক আগে এই সেতুটি সম্পর্কে বলা হয় যে এই সেতুটি মানুষের তৈরি তো ২০০৭ সাল নাগাদ আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়া তরফ থেকে বলা হয় যে এই ভূখণ্ডটি কিছুতেই মানুষের তৈরী নয়।

এই গবেষণা করার জন্য সমুদ্রবিজ্ঞান থেকে দুটি বড় আকারের জাহাজ ব্যবহার করা হবে এবং যেটি ৩৫ থেকে ৪০ মিটার সমুদ্রতলের পলি মাটি সংগ্রহ করতে পারবে এবং সেই মাটি নিয়ে পর্যবেক্ষণ করা হবে এর সাথে আরও দেখা হবে যে রাম সেতুর আশেপাশে কোন রকম বসতি গড়ে উঠেছিল কিনা।