কি অবস্থা, ফোনে কথা বলতে বলতে একজনকেই ক’রো’নার ২ ডোজ দিয়ে দিলেন নার্স

বেশ কিছু মাস আগে থেকেই শুরু হয়ে গেছে দেশজুড়ে করণা টিকা করন। এ রকমই ব্যস্ত দিনে একের পর এক মানুষকে টিকা দিচ্ছিলেন একজন নার্স। কিন্তু হঠাৎ করে কাজের ফাঁকে বেজে ওঠে তার মোবাইল ফোন। ব্যস্ত সমস্ত হয়ে মোবাইলে কথা বলতে বলতে একজন মহিলাকে দিয়ে দেন দুবার করণা টিকা। শনিবার এই সাংবাদিক ঘটনাটি ঘটে গেছে উত্তরপ্রদেশের কানপুর দেহাত জেলার আকবরপুড়ে।

অভিযোগকারিণী দাবি করেছেন যে, কাজের মধ্যেই একটানা অনেকক্ষণ ফোন করতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছিলেন সরকারি প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রর সেই নার্স। অনেকক্ষণ কথা বলতে বলতে তার মন অন্য দিকে চলে যায় এবং ভুল করে তাকে দিয়ে ফেলেন দুবার করণা টিকা। সে সময় তিনি কর্তব্যরত নার্স কে জিজ্ঞাসা করেন যে, কেন তাকে একটি ইনজেকশন দেওয়ার বদলে দুবার ইনজেকশন দেওয়া হল। তখন হতভম্ব হয়ে নার্স ও নিজের ভুল স্বীকার করে নেন।

সঙ্গে সঙ্গে ক্ষমা চেয়েছেন সেই মহিলার কাছ থেকে। সরকারি নিয়ম অনুযায়ী, সেই মহিলা সেদিন প্রথম ডোজ নেবার কথা ছিল করোনার। ৬ থেকে ৮ সপ্তাহ পরে নেবার কথা ছিল দ্বিতীয় ডোজ। কিন্তু স্বাস্থ্য সেবিকার এই গাফিলতিতেই তাকে পরপর দুবার নিতে হলো করণা টিকা।

ঘটনাতে অভিযোগকারিণী কমলেশ কুমারী জানিয়েছেন যে, পরপর দুবার টিকা নেবার ফলে তার হাতে সেই অংশ ফুলে গেছিল। এই ঘটনার পরে মহিলার পরিবারের সদস্যরা চিৎকার চেঁচামেচি করেন। জেলাশাসক এবং স্বাস্থ্য দপ্তরের উচ্চপদস্থ আধিকারিক দের দ্বারস্থ হন অভিযোগকারিণীর পরিবারের লোকজন।

পিটিআই রিপোর্ট অনুযায়ী, পরপর দুইবার ইনজেকশন নেওয়ার পরে ওই মহিলার সামান্য জ্বর এসেছিলো। কিন্তু সৌভাগ্যবশত তেমন গুরুতর কোন সমস্যা হয়নি। তবে এরকম ঘটনা ঘটার ফলে তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে জেলাশাসক জিতেন্দ্র প্রতাপ এর তরফ থেকে। এরকম ভুল যেন আর দ্বিতীয়বার না হয় সেই জন্য তারা প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবেন।