পাহাড়ে কি মিল হবে বিমলের সঙ্গে বিনয়ের? আজ গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক নবান্নে

আজ মঙ্গলবার, নবান্নে শুরু হতে চলেছে পাহাড় নিয়ে বৈঠক। আর তার আগেই সবার মুখে একই কথা তাহলে কি সত্যি তিনি মেলাবেন তাদের? আসলে কাজটা যে অতটা সহজ হবে না সেটা কিন্তু বোঝাই যাচ্ছে। কারণ গতকাল সোমবার বাগডোগরা থেকে বিনয় তামাং বিমল গুরুং এর উদ্দেশ্যে বার্তা দিলেন, পাহাড়ে জায়গা নেই বিমলের। আর সেই কারণেই তার সাথে প্রশাসনিক ও রাজনৈতিক ভাগাভাগির নেই কোনো প্রশ্ন।

আর এই কথাকেই বিশেষজ্ঞ মহল দর কষাকষির সাথে মেলানোর চেষ্টা করছেন। কারণ তিনি যে সব কথা সেখানে বলেছেন, সেখানে ৩ বছরের আগের কথা উঠে আসে, বিনয়দের বিশ্বাসঘাতকতার কথা উঠে আসে। আর সেই কারণেই কোনভাবেই বিমলের সাথে ক্ষমতা ভাগ করে নেওয়াও কঠিন। তবে আবার যদি মুখ না খোলা হয় তাহলে বিমলের প্রভাবকে পুরোপুরি ব্যক্ত করাও সম্ভব নয়, আর অস্বীকার করা তো দূরের কথা। এবার এই অবস্থার মধ্যে দুই জনকে মেলানো শাসক দলের কাছে অনেকটাই যে কঠিন সেটা বোঝাই যাচ্ছে।

এখন শাসক দল কিভাবে এই পরিস্থিতিকে হ্যান্ডেল করে সেটার জন্য সবাই মুখিয়ে আছে, তবে বিনয়ের ঘনিষ্ঠ মহল জানাচ্ছে, গত ৩ বছর আগে পাহাড়ের কথা মাথায় রেখে বিনয় তামাং ও অনীত থাপা রাজ্য সরকারের সাথে বৈঠকে বসেছিলেন। আর সেখানেই তারা বিমলের বিরুদ্ধে তোপ দেগেছিলেন। আর এটা নিয়েই এবার বামেদের প্রশ্ন, যখন পাহাড় অশান্ত ছিল তখন কেবল বিনয় এই পাহাড়কে শান্ত করেছিল, তখন তো বিমলের দেখা পাওয়া যায় নি। তাই বিনয় বিমলের উদ্দেশ্যে সেদিনও জানিয়েছে, পাহাড়ে আর জায়গা নেই বিমলের। তিনি একজন পলাতক নেতা। ১৫০ টির বেশী মামলায় অভিযুক্ত সে। আমার দেশের আইন ব্যবস্থার প্রতি ভরসা আছে।

তবে বিমলের সমর্থকেরা বিনয়ের বিরুদ্ধে বলেন, বিনয়ের নামেও আছে অনেক মামলা। বিমলের সমর্থকেরা চুপ করে নেই। তারাও চালাচ্ছে ছোট ছোট সভা বৈঠক। রাজনৈতিক সূত্রের মাধ্যমেই জানা গেছে, এই বিমল গুরুং নাকি গত রবিবার তৃণমূলের প্রথম সারির নেতার সাথে বৈঠক করেছেন। এখানেই শেষ না। তার নাকি যোগাযোগ রয়েছে প্রশান্ত কিশোরের দলের সাথেও।