কি যে বলে! পরমাণু বোমা ফেটেই নাকি লাল হয়েছে মঙ্গল, আজব দাবিতে হাসির রোল নেট দুনিয়ায়

সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে নিত্যদিন কতইনা অদ্ভুত তথ্য আমাদের নজরে আসে। সোশ্যাল প্ল্যাটফর্মে অনেকেই নিজস্ব ধ্যান-ধারণা, মতামত ও বক্তব্য জনসমক্ষে তুলে ধরেন। যা নিয়ে সোশ্যাল সাইটে কিন্তু কম বিতর্ক হয় না। কারণ একজনের কাছে যে যুক্তি খাটে, অন্যের কাছেও যে সেই একই যুক্তি খাটবে তার কোনো মানে নেই। বিশেষত কেউ যদি কোনো আজগুবি তত্ত্ব জনসমক্ষে তুলে ধরেন তাহলে নেটিজেনরা তা যে এটা মেনে নেবেনই এমন কোন মানে নেই।

যেমনটা হয়েছে এক টিকটক ইউজারের সঙ্গে। ক্র্যাকহেড জো ডার্ট নামক ওই টিকটক ইউজার সম্প্রতি মঙ্গল গ্রহকে নিয়ে নিজের এক অদ্ভুত বক্তব্য তুলে ধরেছেন। তার দাবি, বর্তমান যে লাল গ্রহ পৃথিবীর প্রতিবেশী, সেখানেও কিন্তু একসময় প্রাণের অস্তিত্ব ছিল। পরমাণু বিস্ফোরণের কারণে সেই প্রাণের অস্তিত্ব নষ্ট হয়ে গিয়েছে। শুধু তাই নয়, মঙ্গল গ্রহের লাল রংও সেই পরমাণু বিস্ফোরণের ফল, এমনটাই মনে করেন ওই টিকটক ইউজার।

তার এমন দাবির কারণে সোশ্যাল মিডিয়ায় কিন্তু বেশ চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। নেটিজেনরা অবশ্য তার এই দাবিকে হাওয়াতেই উড়িয়ে দিয়েছেন। কারণ নাসার বিজ্ঞানীরা যেখানে দাবি করছেন মঙ্গল গ্রহের লাল রংয়ের কারণ সেই গ্রহের মাটিতে অবস্থিত আয়রন অক্সাইড, সেখানে ক্র্যাকহেড জো ডার্টের এমন দাবি মেনে নিতে কেউই রাজি নন।

ঠিক কি বলেছেন ক্র্যাকহেড জো ডার্ট? সোশ্যাল সাইটে তিনি বলেন, মঙ্গল গ্রহে একসময় নিউক্লিয়ার শৈত্য নেমে এসেছিল। পারমাণবিক বিস্ফোরণ ছিল তার কারণ। এই বিস্ফোরণের দরুন মঙ্গলের প্রাণের অস্তিত্ব এবং প্রাকৃতিক সম্পদ নষ্ট হয়ে যায়। বর্তমানের লাল গ্রহে পরিণত হয় মঙ্গল! নেটিজেনরা অবশ্য এই দাবি মানতে নারাজ। ক্র্যাকহেড জো ডার্টের এই দাবি যে বড় বড় বৈজ্ঞানিক তত্ত্বকে নস্যাৎ করে দেবে!