দীর্ঘ ২৮ বছরের বিতর্ক অবসান, বাবরি ধ্বংস নিয়ে কি কি বললেন বিচারকেরা, দেখুন

দীর্ঘ ২৮ বছরের বিতর্কের অবসান ঘটলো। সম্প্রতি বাবরি মসজিদ মামলায় অভিযুক্ত ৩২ জনকে প্রমাণের অভাবে বেকসুর খালাস ঘোষণা করেছে লখনৌ আদালত। এদিন বেলা সাড়ে বারোটা নাগাদ লখনৌ আদালতের বিচারপতি জানান, অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কোনো প্রত্যক্ষ প্রমাণ নেই। বিচারপতি আরও জানিয়েছেন, বাবলি মসজিদ ভাঙার ঘটনা পূর্বপরিকল্পিত ছিল না। এরকম বেশ কিছু যুক্তির পরিপ্রেক্ষিতে, এদিন মামলার রায় প্রদান করা হয়।

বাবরি মসজিদ মামলার রায় বিজেপি নেতা লালকৃষ্ণ আদভানি, মুরলী মনোহর যোশী, উমা ভারতী, তৎকালীন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী কল্যাণ সিং সহ আরো ৩২ জন অভিযুক্তের স্বপক্ষেই গেছে। এদিন বিচারপতি জানান, অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে প্রমাণ হিসেবে সিবিআইয়ের তরফ থেকে যে অডিও এবং ভিডিও আদালতে জমা দেওয়া হয়েছে, তা থেকে স্পষ্ট ভাবে কিছু বোঝা যাচ্ছে না।

আদালতের তরফ থেকে আরো জানানো হয়, বাবরি মসজিদ ভাঙার সময় মন্দিরের চূড়ার উপর যারা উঠেছিল তারা প্রত্যেকেই সমাজবিরোধী। আদালতের দাবি অনুযায়ী, অভিযুক্তরা বিক্ষোভকারীদের মসজিদের ডোমের উপর উঠতে বাধা দিয়েছিলেন। উল্লেখ্য, বাবরি মসজিদ ধ্বংসের প্রত্যক্ষদর্শী ছিলেন প্রায় ৩০ থেকে ৪০ হাজার মানুষ। এদের মধ্যে সিবিআই ১০২৬ জন প্রত্যক্ষদর্শীকে আদালতে পেশ করার অনুমতি চেয়েছিল।

তবে অবশেষে আদালতে মাত্র ৩৫১ জন প্রত্যক্ষদর্শী সাক্ষ্য দেন। পাশাপাশি সেই সময়ে উপস্থিত কয়েকজন পুলিশ কর্মী এবং সাংবাদিককেও সাক্ষী হিসেবে পেশ করা হয়। তার সাথে নথী হিসাবে কিছু অডিও এবং ভিডিও পেশ করে সিবিআই। তবে, আদালতের তরফ থেকে রায় প্রদানের সময় জানানো হয়, এই প্রমাণগুলি থেকে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ প্রমাণিত হয়নি। তাই, দীর্ঘ ২৮ বছর পর মামলার প্রধান অভিযুক্তরা বেকসুর খালাস পেয়ে গেলেন।