অবশেষে ভারতে পৌঁছল ভিভিআইপি বিমান ‘এয়ার ইন্ডিয়া ওয়ান’

পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী, বৃহস্পতিবার বেলা তিনটে নাগাদ আমেরিকা থেকে উড়ে দিল্লির ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে  অবতরণ করল “এয়ার ইন্ডিয়া ওয়ান” এর দুটি অত্যাধুনিক বোয়িং ৭৭৭-৩৩০ ইআর বিমান। ভারতের অসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রকের আধিকারিক টুইটারে এই তথ্য প্রকাশ করে জানালেন, প্রধানমন্ত্রীর “এয়ার ইন্ডিয়া ওয়ান” বিমান দুটি সম্প্রতি দিল্লি বিমানবন্দরে অবতরণ করল।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কেন্দ্রীয় আধিকারিক জানালেন, আমেরিকার টেক্সাসের ওর্থ বিমানবন্দর থেকে প্রায় ১৫ ঘণ্টার যাত্রাপথ পেরিয়ে বৃহস্পতিবার দুপুর ৩ টে ১১ মিনিট নাগাদ দিল্লি পৌঁছেছে আমেরিকার অত্যাধুনিক দুইটি বোয়িং ৭৭৭-৩৩০ ইআর বিমান। কেন্দ্রীয় সরকারের অধীনস্থ অপর এক উচ্চপদস্থ আধিকারিক জানালেন, গত আগস্ট মাসের ২৫ তারিখেই বিমানটির ভারতে পৌঁছে যাওয়ার কথা ছিল। তবে, কিছু আভ্যন্তরীণ সমস্যার জন্য তা পিছিয়ে যায়।

উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী, রাষ্ট্রপতি এবং উপরাষ্ট্রপতির বিদেশ সফরের উদ্দেশ্য এই দুইটি বিশেষ বিমান আমেরিকার কাছ থেকে আমদানী করলো ভারত। আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এই ধরনের বিশেষ বিমানে যাতায়াত করেন। এই বিমানগুলি কিন্তু অন্যান্য সাধারণ বিমানের মতো নয়। বিমান গুলিতে ভিভিআইপিদের জন্য রয়েছে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা। সন্ত্রাসবাদী হামলার মোকাবেলা করতে সক্ষম এই বিশেষ ধরনের অত্যাধুনিক বোয়িং বিমান।

শুধু তাই নয়, অত্যাধুনিক এই বিমানগুলোতে রয়েছে “মিসাইল ডিফেন্স সিস্টেম”, যা শত্রুপক্ষের ক্ষেপণাস্ত্রকে প্রতিহত করতে সক্ষম। শত্রুর হামলা থেকে ভিভিআইপিদের বাঁচাতে বিমানে থাকবে সেল্ফ প্রোটেকশন স্যুট। পাশাপাশি, ভিভিআইপিদের স্বাচ্ছন্দ্যের সমস্ত ব্যবস্থা থাকছে স্পেশাল বিমান দুটিতে। রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী এবং উপরাষ্ট্রপতির ব্যবহারের জন্য থাকছে একটি বড় অফিস। তার সাথেই রয়েছে বৈঠকের জন্য আলাদা ঘর, নানা ধরনের উন্নত কমিউনিকেশন সিস্টেম এবং উন্নত স্বাস্থ্য পরিষেবা। শুধু তাই নয়, উড়ান চলাকালীন কোনো কারনে বিমানের জ্বালানি ফুরিয়ে গেলেও মাঝ আকাশে জ্বালানি তেল ভরে নেওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে।