প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে আমেরিকায় চলছে ভোট গ্রহণ, ট্রাম্পের থেকে এগিয়ে বিডেন

সবাই এই মঙ্গলবারের জন্য অপেক্ষায় বসে ছিল, কারণ আজ মঙ্গলবার আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের শেষ দিন। আর তার পরেই স্পষ্ট জানতে পারা যাবে কে হতে চলেছে আমেরিকার আগামী ৪ বছরের জন্য প্রেসিডেন্ট। ডোনাল্ড ট্রাম্প বনাম জো বিডেন কে হবে জয়ী সেটা সময় আসলে ঠিকই জানা যাবে। কিন্তু সমীক্ষা কী বলছে সেটা জেনে নেওয়া দরকার। আমেরিকায় নথিভুক্ত ভোট প্রার্থী ১৫ .৩ কোটি, যা ভোট ভোট দাতার ৬৫%। এখন এমনিতেই করোনা পরিস্থিতি তার মধ্যে ভোট পর্ব চলছে, সেইকারণেই অনেক মানুষ আর্লি ভোটিং প্রক্রিয়াকে বেছে নিয়েছে। আর তার পরেই যে সমীক্ষা যে পরিসংখ্যান সেখানে নাকি পিছিয়ে গেছে ডোনাল্ড ট্রাম্প। কিন্তু এতেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়ে গেছে বলে মনে করা যাবে না।
কারণ এই জটিল অঙ্ক বেমালুম গুলিয়ে দিয়ে ওলট পালট করে দেওয়ার ক্ষমতা আমেরিকার আছে। এই ভোট গ্রহণ নিয়েই অনেক জায়গায় সমীক্ষা করা হয়েছে, যার মধ্যে নিউ ইয়র্ক টাইমস-সিয়েনা কলেজের একটি সমীক্ষা, সিএনএন-এর একটি সমীক্ষা যারা বলছে উইসকনসিন, পেনসিলভানিয়া, অ্যারিজোনা, ফ্লোরিডা, অ্যারিজোনা, নর্থ ক্যারোলিনা, মিশিগান এই সব জায়গায় আগের ভোটে ডোনাল্ড ট্রাম্প যেখানে এগিয়ে ছিল সেখানেই এবার ডোনাল্ড ট্রাম্পকে পিছনে ফেলে এগিয়ে গেছে জো বিডেন। দেশ সামলানোর ভার, গ্রহণ যোগ্যতা সব কিছু বিচার করে মানুষ জো বিডেনের ওপরেই আস্থা রাখছে বলে মনে করা হচ্ছে। একটা সময় এই সব জায়গা ছিল ট্রাম্পের ঝুলিতে। কিন্তু এখনই কোনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় আসে নি।
এদিকে আবার জানা গেছে আমেরিকায় প্রেসিডেন্ট ভোটে জিততে গেলে নির্বাচক মন্ডলীর সংখ্যা গরিষ্ঠতা খুবই দরকার, আর সেই কারণেই একটি রাজ্য এর মধ্যে কখনই প্রাধান্য বিস্তার করতে পারে না। সেখানে মতামত দরকার হয় একাধিক রাজ্যের। আসলে কিছু রাজ্য এর মধ্যে আছে যেগুলো ডেমোক্র্যাট বলেই পরিচিত। আর এই সব জায়গায় অভিবাসীতে ভর্তি, সেই কারণেই যেখানে রিপাব্লিকানরা কখনই দাঁত ফোটাতে পারবে না। সেখানে সর্বদা ডেমোক্র্যাটদের দাপট বিদ্যমান। কিন্তু আবার যেখানে অভিবাসীরা জনসংখ্যায় কম, সেখানে দাপট আবার রিপাবলিকানদের। এই মধ্য আমেরিকার কথা যদি বলতে হয় তাহলে সেই সব জায়গার শ্বেতাঙ্গরা রিপাবলিকানদের শক্তি। সেখানে কোনোভাবেই ডেমোক্র্যাট দাপট দেখাতে পারে না। তাই আমেরিকার ভোট নির্বাচনের সময় এই ৫০ টি রাজ্য যেখানে ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকানদের দাপট বেশী সেগুলোকে বাদ দিয়েই আসল হিসেব নিকেশ করা হয়। যার মধ্যে আছে পেনসেলভিনিয়া, আইওয়া, ফ্লোরিডা, ওয়াইহো।

আসলে এবারের নির্বাচন অনেকটাই আলাদা, কারণ আমেরিকার ওপরে এবার অনেক ঝড় গিয়েছে সেগুলোকে সামলে ট্রাম্প তার গদি সামলাতে পারবে কিনা সেটা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করছে বিশেষজ্ঞরা। মেল ইন ব্যালেট কারচুপি, বর্নবিদ্বেষ, জর্জ ফ্লয়েড, করোনায় মৃত্যু ২ লক্ষ ৩২ হাজার, যা একটা বিশাল প্রভাব ফেলবে বলেই মনে করা হচ্ছে।