ভোট প্র’চা’র-রো’ড শো-মি’ছি’ল, সবকিছুই ব’ন্ধ করার নি’র্দে’শ ক’মি’শ’নে’র

করোনার মধ্যেই একুশের বিধানসভা নির্বাচন সম্পন্ন হচ্ছে। দিন যত এগোচ্ছে, সংক্রমনের মাত্রাও তত বাড়ছে। এমতাবস্থায় রাজনৈতিক দলগুলির ভোটের প্রচার চালানো, হাজার হাজার মানুষ নিয়ে মিটিং-মিছিল, রোড শো, জনসভার আয়োজনের বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনকে তীব্র ভৎসনা করেছে কলকাতা হাইকোর্ট। হাইকোর্টের বিরোধিতার মুখে পড়ে শেষমেষ চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হলো নির্বাচন কমিশন।

করোনার সংক্রমণ দ্রুত ছড়াচ্ছে। বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গে দৈনিক সংক্রমণের হার ১২ হাজারের গণ্ডি পেরিয়ে গিয়েছে। তবুও রাজনৈতিক দলগুলি মিটিং মিছিল থেকে বিরত থাকছে না। করোনা পরিস্থিতি বিবেচনা করে বামেরা অবশ্য বহু আগেই প্রচার মঞ্চ থেকে সরে এসেছে। তৃণমূলও ভার্চুয়ালি প্রচার চালানোর পক্ষে। তবে বিজেপি প্রচার বন্ধের পক্ষে নয়।

ভোটের প্রচার নিয়ে রাজ্যবাসীদের একাংশের মনেও চূড়ান্ত বিক্ষোভ দেখা দেয়। চরম সমালোচিত হয়ে শেষমেষ বৃহস্পতিবার ষষ্ঠ দফার নির্বাচন সম্পন্ন হতেই নির্বাচন কমিশন ভোটের প্রচার নিয়ে নতুন নির্দেশিকা প্রকাশ করতে বাধ্য হল। শেষ দুই দফার জন্য রোড শো, পদযাত্রার আয়োজন করা যাবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

প্রসঙ্গত, শেষ দুই দফার ভোটের আগে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে কলকাতা একটি রোড শো হওয়ার কথা ছিল। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের নেতৃত্বেও আরেকটি রোড শোয়ের আয়োজনের কথা ছিল বঙ্গ বিজেপি শিবিরের। নির্বাচন কমিশনের নতুন নির্দেশিকার কারণে আপাতত সেসব ভেস্তে গেল।