গার্হস্থ্য হিংসায় অভূতপূর্ব সিদ্ধান্ত, নির্যাতিতা বধূর শ্বশুরবাড়িতে থাকার অধিকার আছে

শ্বশুর বাড়িতে নির্যাতনের শিকার গৃহবধূরা, এবার সেটা নিয়েই এক বড় ঐতিহাসিক রায় দিল সুপ্রিম কোর্ট। এই নিয়ে মামলার রায় দিতে গিয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার বিচার পতির ডিভিশন বেঞ্চ জানায়, গার্হস্থ্য হিংসা অনুসারে, নির্যাতিত বৌমার শ্বশুর বাড়িতে থাকার অধিকার আছে। আর যদি শ্বশুর বাড়ি থেকে বের করেও দেয় তাহলে শেয়ার্ড হাউসহোল্ড এর জেরে তারা তাদের অধিকার দাবি করতেই পারে। আসলে স্বামীর পরিবারের কারো একজনের নামে থাকলেই সেখানে অধিকার আছে নির্যাতিতা বৌমার।

২০০৫ সালের তৈরী গার্হস্থ্য নিয়ম হিসেবে বলা আছে, নির্যাতিতা শেয়ার্ড হাউস হোল্ড হিসেবে দাবি জানাতেই পারে। তার স্বামীর আত্মীয় ও পরিবারের কারও নামে বাড়ি থাকলেই সহজেই দাবি জানাতে পারবে সেই মহিলা। তবে তার আগে একটি প্রমাণ অবশ্যই রাখতে হবে, সেটা হল সেই পরিবারের মানুষের সাথে দীর্ঘ সময় কাটানোর। তাহলেই শেয়ার্ড হাউসহোল্ড হিসেবে বিবেচিত হবে।
এই নিয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার সুপ্রিমকোর্টের বিচার পতি এম আর শাহ, অশোক ভূষণ, সুভাষ রেড্ডি, জানিয়েছেন, দেশে প্রায় গার্হস্থ্য নির্যাতনের ঘটনা ঘটে চলেছে।কিন্তু এই সব নিয়ে সব থেকে কম রিপোর্ট জমা পরে। তবে এই রায় বহু মহিলার জীবনে স্বস্তির বার্তা নিয়ে আসবে। কারণ দেখা যায় নির্যাতিতা গৃহবধূদের বাড়ির থেকে বের করে দেওয়াহয় আকসার। কিন্তু এবার আর সেটা হবে না। কারণ শীর্ষ আদালতের এই নির্দেশে মহিলারা অনেকটাই স্বস্তি পাবে। তবে শেয়ার্ড হাউসহোল্ড বলে যে, যদি স্বামী বা স্বামীর আত্মীয় পরিবারের নামে বাড়ি থাকে, তাহলে সেটা নিয়মের অন্তর্গত হবে।