শুক্র রাশিয়ান গ্রহ, প্রাণের ইঙ্গিত মিলতেই নিজেদের বলে দাবি তুললো রাশিয়া, হতবাক পুরো বিশ্ব

সম্প্রতি শুক্র গ্রহে প্রাণের সম্ভাবনা খুঁজে পেয়েছেন নাসার গবেষকেরা। নাসার মহাকাশ বিজ্ঞানীদের দাবি, শুক্র গ্রহে থাকতে পারে ভিনগ্রহীরা। অতএব এবার থেকে আগে শুক্র গ্রহে ভিনগ্রহীদের সন্ধান চালানো হবে। নাসার এই বক্তব্য সামনে আসতেই আচমকা রাশিয়া দাবি করে বসে, শুক্র গ্রহটি নাকি রাশিয়ান গ্রহ। এই গ্রহে একমাত্র রাশিয়ার অধিকার রয়েছে। কারণ রাশিয়াই শুক্র গ্রহে প্রথম পা রেখেছিল। তাই এই গ্রহটি আসলে রাশিয়ারই সম্পত্তি।

সম্প্রতি এমনই উৎকট দাবি করে বসলেন রাশিয়ান মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্রের প্রধান দিমিত্রি রোগোজিন। রাশিয়ার মস্কো শহরে একটি অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেছিলেন রোগোজিন। সেই অনুষ্ঠান মঞ্চেই এই মন্তব্য পেশ করেছেন তিনি। মস্কো টাইমস সংবাদ মাধ্যমে তিনি জানিয়েছেন, রাশিয়ায় প্রথম এবং একমাত্র দেশ, যে দেশ এখনো পর্যন্ত শুক্রে পৌঁছেছে। এই গ্রহটি রাশিয়ার সম্পত্তি। শুক্র গ্রহকে রাশিয়ান গ্রহ হিসেবে সম্বোধন করেছেন রোগোজিন।

নেচার অ্যাস্ট্রোনমি জার্নালে নাসার গবেষকেরা তাঁদের শুক্রগ্রহ সম্পর্কিত গবেষণার রিপোর্ট পেশ করেছেন। তারা জানিয়েছেন, শুক্র গ্রহের বায়ুমন্ডলে ফসফিন নামক এক প্রকারের পদার্থ পাওয়া গেছে। যা পৃথিবীতেও উপস্থিত। এই যৌগটি বায়ুমন্ডলে জীবনের উপস্থিতি নির্দেশ করে। ফলে শুক্র গ্রহে প্রাণের উপস্থিতি থাকার সম্ভাবনা প্রবল। ‌ফলে ভবিষ্যতে শুক্র গ্রহে আরো দুটি অভিযান চালানোর পরিকল্পনা রয়েছে নাসার।

রোগোজিনের বক্তব্য অনুযায়ী, বিগত ৬০, ৭০ ও ৮০-র দশক ধরে একাধিকবার শুক্র গ্রহে অবতরণ করেছে রাশিয়ার মহাকাশ যান। পাশাপাশি, রাশিয়ায় প্রথম শুক্র গ্রহ সম্বন্ধে যাবতীয় তথ্য পাঠিয়েছে পৃথিবীকে। তিনি আরো জানান, এবার থেকে রাশিয়া স্বাধীনভাবে, অন্য কোন দেশের নিয়ন্ত্রণ ছাড়াই শুক্র গ্রহে অভিযান করবে। এবার থেকে আর কোনো আন্তর্জাতিক সংস্থার সাথে যৌথ উদ্যোগে রাশিয়া অভিযান চালাবে না বলে জানিয়েছেন তিনি।