আমেরিকার ডিজিটাল স্ট্রাইক, জারি হলো নির্দেশিকা, ব্যান হলো TIKTOK ও WECHAT

বেশ কয়েক মাসের টানা জল্পনা-কল্পনার পর এবার ভারতের দেখানো পথে হাঁটল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রশাসন তাদের দেশ থেকে ব্যান করতে শুরু করে দিলেন চিনা অ্যাপ কে। ইতিমধ্যেই ঘোষণা হয়ে গেছে এই পদক্ষেপের কথা। আগামী রবিবার থেকে আমেরিকার মাটিতে টিকটক এবং উইচ্যাট ডাউনলোড করা যাবে না। জাতীয় নিরাপত্তার স্বার্থে এই পদক্ষেপ বলে জানানো হয়েছে সরকারের তরফ থেকে। তবে এই সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রশাসনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে। সমালোচকরা ট্রাম্প প্রশাসন এর বিরোধিতা করে বলেছেন যে,এর ফলে সাধারণ মানুষের স্বাধীন মত প্রকাশের অধিকার খর্ব হবে।

তবে কোনো সমালোচনাকে গুরুত্ব না দিয়ে শুক্রবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দেশের কোম্পানিগুলি উদ্দেশ্যে বাণিজ্যের প্রশাসন নির্দেশিকা জারি করেছেন। সেখানে স্পষ্ট বলা আছে যে, রবিবার রাত্রি বারোটা বাজার সাথে সাথে টিকটক এবং উইচ্যাট ডাউনলোড এবং আপলোড এর সমস্ত সুবিধা বন্ধ করে দেওয়া হবে। মার্কিন বাণিজ্য সচিব উইলবার রোস একটি বিবৃতিতে বলেছেন যে, রবিবার মধ্যরাত থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বন্ধ করে দেওয়া হবে উইচ্যাট। তবে আগামী ১২ ই নভেম্বর পর্যন্ত টিকটক ব্যবহার করতে পারবেন গ্রাহকরা। তবে নতুন করে অ্যাপ ডাউনলোড করা বা আপডেট করা বন্ধ থাকবে।যদি এর মধ্যে টিকটক ঘিরে নিরাপত্তা সংক্রান্ত উদ্বেগের সমাধান হয়ে যায়, তাহলে ১২ নভেম্বরের পরে আবার পূর্ণমাত্রায় টিকটক ব্যবহার করতে পারবে সাধারন মানুষ।

ভারতের মতোই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের যুব সমাজের মধ্যে টিকটক খুবই জনপ্রিয়। এই অ্যাপ নিয়ে নিরাপত্তা সংক্রান্ত কোনো রকম ঝুঁকি নিতে চাননা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। টিকটকের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হবে শুধুমাত্র একটি চুক্তিতে, যদি তারা তাদের ব্যবসার কিছু অংশ মার্কিন সংস্থাকে বিক্রি করতে রাজি হয়। সরকারের বিধিনিষেধের ফলে মার্কিন বাজারে টিকটকের দখল বেশ কিছুটা আলাদা হতে চলেছে।চলতি বছরের প্রথম দিকে টিকটকের অংশীদার ছিল প্রায় ৭৬ শতাংশ। কিন্তু বছরের মাঝ বরাবর সেই বাজার কমে গিয়ে কুড়ি শতাংশে নেমে এসেছে। বর্তমানে মার্কিন মুলুকে টিক টক এর বিকল্প প্রধান দুটি থ্রিলার এবং লাইকি। এই অ্যাপগুলি নির্মাতা গত কয়েক মাসে বাজারে নিজেদের অংশীদারত্ব ৪৪% বাড়াতে সক্ষম হয়েছে।