অবাস্তব, মাত্র এই কয়েকটি কলার দাম দেড় লাখ টাকা! মাথায় আকাশ ভেঙে পড়লো মহিলার

বাজার চলতি জিনিসপত্রের দাম এখন আকাশ ছোঁয়া। মধ্যবিত্তদের প্রায়শই টান পড়ে প্রায়ই।কিন্তু দাম বাড়লেও আপনার আন্দাজমতো এক ডজন কলার দাম ঠিক কতখানি হতে পারে? বড়জোর কুড়ি থেকে ত্রিশ টাকা নিশ্চয়ই। কিন্তু আপনাকে যদি বলা হয় যে ছটি কলার দাম ভারতীয় মুদ্রায় আপনাকে দিতে হবে ১ লক্ষ ৬০ টাকা, তাহলে নিশ্চয়ই আপনিও হকচকিয়ে যাবেন কিছুটা। তবে এই রকম ঘটনা ঘটেছে সম্প্রতি লন্ডনে। এটি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, সম্প্রতি শ্যামোব্রে ব্রানস নামে একজন মহিলা তার অঞ্চলের একটি স্টোর থেকে জিনিসপত্র কিনতে গিয়েছিলেন। নিজের প্রয়োজনীয় কিছু জিনিস কেনার পর তিনি কেনেন কয়েকটি কলা। যার আনুমানিক মূল্য হওয়ার কথা ছিল বড়জোর এক পাউন্ড।

প্রয়োজনীয় জিনিস কেনাকাটা করার পর তিনি কাউন্টারে গিয়ে বিল মিটিয়ে দেন। তার বিল হবার কথা ছিল ৫ পাউন্ড, কিন্তু দেখা যায় যে তার বিল হয়েছে সব মিলিয়ে ১৫৯৯ পাউন্ড যা ভারতীয় মুদ্রায় গিয়ে দাঁড়ায় প্রায় দেড় লক্ষ টাকার বেশি। তাড়াহুড়োয় তিনি সম্পূর্ণ ব্যাপারটি লক্ষ্য করেনি। অ্যাপেল পের মাধ্যমে পুরো টাকাটা দিয়ে দেন।

কিন্তু কিছুক্ষণ পরেই তিনি ব্যাপারটি লক্ষ্য করেন যে তাকে যেকোনো কারণেই হোক বেশি টাকা দিতে হয়েছে। তখন তিনি ওই কলা ফেরত দিতে চান। তবে স্টোর মাধ্যম থেকে জানানো হয় যে, ওই টাকা ফেরত দিতে পারবেনা স্টোর। এরপর ওই মহিলা প্রায় ৪৫ মিনিট হেঁটে আরো একটি এম এন্ড এস স্টোরে যান। সেখানে গিয়ে নিজের অভিযোগের কথা জানান সকলকে।

পরে অবশ্য স্টোর এর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, যদি এটি অনিচ্ছাকৃত ভুল ছাড়া কিছু নয়। মহিলাকে অবিলম্বে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কথা জানিয়েছেন তারা।তবে ঘটনায় স্টোরের মালিক রীতিমতো হতবাক হয়ে গেছেন। অন্যদিকে ওই ভদ্রমহিলা জানান যে, তখন অফিসে যাবার তারা থাকার কারণে সম্পূর্ণ বিষয়টি লক্ষ্য করেননি তিনি। কিন্তু যখন তিনি বুঝতে পারেন তখন অনেকটাই দেরি হয়ে যায়। বিলের প্রিন্ট বেরিয়ে যায় তখন। তবে পরবর্তী কালে তার টাকা ফেরত পাবার জন্য তিনি আর কোন আইনি পদক্ষেপ নিতে চাননি।