মাঝ সমুদ্রে উল্টে যায় ট্রলার! পুলিশের তৎপরতায় প্রানে বাঁচলো ১২ জন মৎস্যজীবী

প্রতীক ছবি

পুলিশের তৎপরতায় বাঁচলো মৎস্যজীবীদের প্রাণ। সোমবার রাতে, দক্ষিণ চব্বিশ পরগণার পাথরপ্রতিমার গোবর্ধনপুর কোস্টাল থানা এলাকায় বঙ্গোপসাগরের বুকে ডুবে যেতে বসেছিল একটি মাছ ধরার ট্রলার। ওই ডুবন্ত ট্রলারের মধ্যে ছিলেন ১২ জন মৎস্যজীবী। কোনোরকমে লাইফবোটের সাহায্যে সমুদ্রের ঢেউয়ের সঙ্গে লড়াই করে ভেসেছিলেন তারা। তবে, সময়মতো ঘটনাস্থলে পুলিশ পৌঁছে যাওয়াতে প্রাণে রক্ষা পেলেন তারা।

সূত্রের খবর, সোমবার রাত সাড়ে সাতটা নাগাদ পাথরপ্রতিমার গোবর্ধনপুর কোস্টাল থানার পুলিশ কর্মীরা সমুদ্রে এরকম একটি ট্রলার দুর্ঘটনার খবর জানতে পারেন। জি প্লট থেকে প্রায় ১৮ কিলোমিটার দূরে দুর্ঘটনার কবলে পড়ে “তিন ভাই” নামের ওই মাছ ধরার ট্রলার। মাঝ সমুদ্রে উল্টে গিয়েছিলো ট্রলারটি। খবর পেয়েই উদ্ধার কাজে বেরিয়ে পড়েন পুলিশ কর্মীরা।

লোকাল থানার আইসি বরুণ সীটের নেতৃত্বে পুলিশ কর্মী এবং সিভিক পুলিশের একটি দল ইন্টারসেপ্টর বোট নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। ঘটনাস্থলে পৌঁছে তারা মৎস্যজীবীদের লাইভ বোটের মাধ্যমে কোনোক্রমে সমুদ্রে ভেসে থাকে দেখেন। রাতের বেলায় চাঁদের আলোর উপস্থিতিতে পুলিশকর্মীরা একে একে প্রত্যেক মৎস্যজীবীকে উদ্ধার করতে সমর্থ হয়েছেন।

মৎস্যজীবীদের উদ্ধার করার পর গোবর্ধনপুর থানায় নিয়ে আসেন পুলিশকর্মীরা। মৎস্যজীবীরা প্রত্যেকেই গোবর্ধনপুর কোস্টাল থানার বাসিন্দা বলে জানা গেছে। মৎস্যজীবীরা জানিয়েছেন, সময়মতো ঘটনাস্থলে পুলিশ কর্মীরা না পৌঁছলে তারা প্রাণে বাঁচতেন কিনা সন্দেহ। পুলিশের দুঃসাহসিক অভিযানের জেরেই মাঝ সমুদ্রে নিশ্চিত মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা পেলেন তারা।