ইতিহাসে এই প্রথম! মিস ইউনিভার্স নেপালের ফাইনালে উঠে রেকর্ড গড়লেন ট্রান্সজেন্ডার অ্যাঞ্জেল লামা

সম্প্রতি নেপালে “মিস ইউনিভার্স নেপাল” এর মাধ্যমে দেশের সর্ব সুন্দরী বেছে নেওয়ার প্রতিযোগিতা সম্পন্ন হয়েছে। এই প্রতিযোগিতার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ আকর্ষণ ছিল, ট্রান্সজেন্ডার মহিলারা এই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে পেরেছেন। তার থেকেও গুরুত্বপূর্ণ হলো নেপালের “মিস ইউনিভার্স” খেতাব জয়ের লক্ষ্য নিয়ে ফাইনালে পৌঁছে গিয়েছেন এক ট্রান্সজেন্ডার প্রতিযোগিনী অ্যাঞ্জেল লামা! বিশ্বের ইতিহাসে এমন ঘটনা আগে কখনো ঘটেনি।

ট্রান্সজেন্ডার তথা LGBT সম্প্রদায়ের মানুষদের নিয়ে এখনো নানা জল্পনা, ধোঁয়াশা, দ্বিধা-দ্বন্দ্ব টিকে রয়েছে তথাকথিত সভ্য সমাজে। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষেরা এখনো তৃতীয় লিঙ্গের মানুষদের নিয়ে ততটা ওয়াকিবহাল নন, যতটা হওয়া দরকার। এহেন একটি পরিস্থিতিতে মিস ইউনিভার্সের ফাইনালে উঠে স্বভাবতই বিশ্বের সমক্ষে বিশেষ বার্তা দিতে চাইবেন অ্যাঞ্জেল লামা।

মিস ইউনিভার্স নেপালের ফাইনালিস্ট ২১ বছর বয়সি অ্যাঞ্জেল লামা বিশ্বের প্রথম ট্রান্সজেন্ডার হিসেবে এই খ্যাতি এবং খেতাব লাভ করে অত্যন্ত গর্বিত। আর পাঁচটি সাধারন পরিবারের মতো লামার পরিবার-পরিজনেরাও তার মধ্যে প্রতিনিয়ত ঘটে চলা পরিবর্তন, মানসিক সংঘর্ষ বুঝতে চান নি। এর প্রধান কারণ হিসেবে অ্যাঞ্জেল অবশ্য তার মা-বাবার এ বিষয়ে শিক্ষার অভাবকেই দায়ী করেছেন।

বিশ্বের প্রথম ট্রান্সজেন্ডার মিস ইউনিভার্স ফাইনালিস্ট হয়ে বিশ্বের কাছে এই সম্প্রদায়ের মানুষদের লড়াইয়ের কথাই তুলে ধরতে চান অ্যাঞ্জেল। তাকে সেই প্লাটফর্ম প্রদান করেছেন মিস ইউনিভার্স নেপালের ন্যাশনাল ডিরেক্টর নাগমা শ্রেষ্ঠা। তিনি জানালেন, যেকোনো লিঙ্গের মানুষেরই সকল বিষয়ে সমান অধিকার রয়েছে। এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করে তিনি বিশ্বের সমক্ষে এই বার্তাই দিতে চেয়েছেন। এর জন্য অবশ্য প্রতিযোগিতার নিয়মে কিছু পরিবর্তনও এনেছেন তিনি। তার প্রধান লক্ষ্য ছিল, LGBT সম্প্রদায়কে বিশ্বের সমক্ষে নতুন রূপে প্রকাশ করা।