টার্গেট বেজিং, এবার বিধ্বংসী মিসাইল ‘শৌর্য’র সফল উৎক্ষেপণ ভারতের, ঘুম উড়ছে চিনের

লাদাখে ভারত-চীন সীমান্ত সংঘর্ষের আবহের কোনো পরিবর্তন হয়নি। প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় উভয়ই প্রতিবেশী রাষ্ট্রের সেনাবাহিনী একে অপরের দিকে বন্দুক উঁচিয়ে রয়েছে। চীন এবং ভারত, উভয় রাষ্ট্রের সামরিক দপ্তর লাদাখে কার্যত নিজেদের শক্তি বৃদ্ধি করতে তৎপর। এরই মাঝে একের পর এক শক্তিশালী মিসাইলের পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপণ চালাচ্ছে ভারত। “নির্ভয়”, “ব্রহ্মস” এর পর এবার আধুনিক ব্যালিস্টিক মিসাইল “শৌর্য” এর সফল উৎক্ষেপণ করলো ডিআরডিও।

বিশিষ্ট সংবাদ সংস্থা এএনআই সূত্রে খবর, শনিবার ওড়িশার টেস্ট রেঞ্জে পারমাণবিক অস্ত্রবহনে সক্ষম শৌর্য মিসাইলের এই নতুন সংস্করণের সফল উৎক্ষেপণ করা হয়েছে। হাইপারসোনিক অর্থাৎ শব্দের চেয়েও দ্রুত বেগ সম্পন্ন ক্ষেপণাস্ত্র “শৌর্য” এর এই আধুনিক সংস্করণটি ৮০০কিলোমিটার দূরত্বে অবস্থিত যেকোনো লক্ষ্যবস্তুতে সফল ভাবে আঘাত হানতে সক্ষম। আজকের পর থেকে এই শক্তিশালী মিসাইলটি “স্ট্র্যাটেজিক মিসাইল ফোর্স” এর অন্তর্ভুক্ত করা হবে বলে জানা গেছে।

ভারতের এই “স্ট্র্যাটেজিক মিসাইল ফোর্স” এ “শৌর্য” ছাড়াও রয়েছে “অগ্নি”র মতো অন্যান্য শক্তিশালী ক্ষেপণাস্ত্র। উল্লেখ্য, গত বুধবার সুপারসনিক “ব্রহ্মস” এর আধুনিক সংস্করণে সফল উৎক্ষেপণ করেছে ডিআরডিও। “ব্রহ্মস” ভারত এবং রাশিয়ার যৌথ উদ্যোগে তৈরি ক্ষেপণাস্ত্র, যার পাল্লা ৪০০ কিলোমিটার। অর্থাৎ ৪০০ কিলোমিটার দূরের যে কোনো লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে সক্ষম “ব্রহ্মস”।

এছাড়াও সম্প্রতি লাদাখ সীমান্তে চীনের বিরুদ্ধে ভারতীয় সেনাবাহিনীর শক্তি বৃদ্ধি করতে “নির্ভয়” মিসাইল মোতায়েন করেছে ভারত। এই সাবসোনিক মিসাইলটি ১ হাজার কিলোমিটার পর্যন্ত যেকোনো লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে সক্ষম। শুধু তাই নয়, শত্রু পক্ষের রাডারকে নিমেষেই চোখে ধুলো দিতে সক্ষম “নির্ভয়”। “নির্ভয়” সহ বেশ কয়েকটি মিসাইল ইতিমধ্যেই লাদাখ সীমান্তে পৌঁছে গেছে।