স্বাধীন ভারতের ইতিহাসে এই প্রথম কোনো মহিলা অপরাধীকে দেওয়া হবে ফাঁসি

স্বাধীন ভারতের ইতিহাসে এক বিরলতম ঘটনা ঘটতে চলেছে। স্বাধীনতার পর দেশের ফাঁসিকাঠে এই প্রথমবার এক মহিলার মৃত্যু দন্ড কার্যকর হতে চলেছে! বিগত দেড়শো বছরের ইতিহাসে কোনো মহিলাকে এ পর্যন্ত ফাঁসিকাঠে ঝুলতে হয়নি। সেই ইতিহাস এবার ভেঙে দিতে চলেছেন আমরোহার বাসিন্দা শবনম। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে তার ফাঁসির আদেশ কার্যকর হতে চলেছে। শবনমের ফাঁসির দিন অবশ্য এখনো ঠিক হয়নি।

আজ থেকে প্রায় ১২ বছর আগের একটি ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে শবনমের বিরুদ্ধে এমন শাস্তির নিদান দিয়েছে উচ্চ আদালত। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশের পর অবশ্য তার ক্ষমা প্রার্থনার পিটিশন রাস্ট্রপতির দোর পর্যন্ত পৌঁছেছিল। তবে রাষ্ট্রপতি সেই পিটিশন খারিজ করে দিয়েছেন। অতএব সুপ্রিম কোর্টের আদেশ বহাল রয়েছে। এবার তার ফাঁসি কার্যকর হবেই।

প্রসঙ্গত, ২০০৮ সালের এপ্রিল মাসে প্রেমিকের সঙ্গে নিজের পরিবারের সাত জন সদস্যকে কুপিয়ে মেরে ফেলেছিলেন শবনম। সেই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে এই মামলাটি “বিরলের মধ্যেও বিরলতম ঘটনা” হিসেবে চিহ্নিত করেছে উচ্চ আদালত। আদালতের রায় অনুসারে মথুরা জেলে তাকে ফাঁসি দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

মথুরা জেলের সুপারিনটেনডেন্ট শৈলেন্দ্র কুমার জানিয়েছেন, শবনমের ফাঁসির দিন এখনো ঠিক হয়নি। তবে ফাঁসি দেওয়ার প্রস্তুতি ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে। শবনমকে ফাঁসি দেবেন মীরাটের পবন জল্লাদ। উল্লেখ্য পবন নির্ভয়া কাণ্ডের সঙ্গে জড়িত অভিযুক্তদেরও ফাঁসি দিয়েছেন। তিনি ভারতবর্ষের প্রথম মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত মহিলা অপরাধীকেও ফাসিঁকাঠে ঝোলাতে চলেছেন।