ক’রোনা আসার অনেক আগে থেকেই এই কয়েকটি ভাইরাস মানব জীবনকে ধ্বংস করে আসছে

বিগত ছয় মাস ধরে সমগ্র বিশ্বের ওপর প্রভাব ফেলেছে করোনা নামক ভাইরাসটি। এই ভাইরাসটি লক্ষ লক্ষ মানুষের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে। এই রোগের জন্য দায়ি ভাইরাসটি হলো নভেল করোনাভাইরাস ১৯। গা হাত পা ব্যথা জ্বর সর্দি কাশি শ্বাসকষ্ট তার সাথে খাবারের স্বাদ এবং গন্ধ চলে যাওয়া হলো এই মরণ ভাইরাসের উপসর্গ।

দুই হাজার কুড়ি সালের 11 ই মার্চ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এই ভাইরাসকে মহামারী রূপে চিহ্নিত করে। এখনো পর্যন্ত সারা বিশ্বে 33 কোটি মানুষ এই রোগে আক্রান্ত হয়েছে। তবে শুধু করণা নয় বিশ্ব ইতিহাসে আমরা দেখেছি সভ্যতার অগ্রগতির সাথে বহু ভাইরাস এসেছে লক্ষ লক্ষ মানুষের প্রাণ।

স্মলপক্স: 1492 সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এই ভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ে। সংক্রমিত দের 30 শতাংশের মৃত্যু ঘটে। এই ভাইরাসের কারণে মৃত ব্যক্তির সংখ্যা হল দুই কোটি। এই মহামারীর ফলে অর্থনীতিতে একটা বড় ধরনের ধ্বস নামে।

কলেরা: 1817 থেকে 1823 সালের মধ্যে ভারতে ছড়িয়ে পড়ে কলেরা রোগ। তখন আমাদের ভারত বর্ষ ছিল ব্রিটিশ শাসনের অধীনে। ব্রিটিশ সৈন্যদের মধ্যেও এই রোগের সংক্রমণ ঘটে। এই রোগটি হলো জল এবং খাবার বাহিত রোগ। এই রোগের কারণে প্রায় 15 লক্ষ মানুষের মৃত্যু ঘটে।

এইচআইভি/এইডস: এই রোগের উদ্ভব ঘটে কোন 1981 সালে। এটি একটি যৌন সংক্রমণের রোগ। সারা বিশ্বে প্রায় 7 কোটি মানুষ এই রোগে সংক্রমিত হয়েছে। এই রোগের ফলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা নষ্ট হয়ে যায়।

সার্স: ২০০৩ সালে চিনে প্রথম ধরা পড়ে এই সিভিয়ার অ্যাকিউট রেসপিরেটরি সিনড্রোম। এই ভাইরাসটির উদ্ভব ঘটে বাদুড়ের শরীরে থেকে। বাদুরের শরীর থেকে আসে বিড়ালের শরীরে তার পরে সেখান থেকে আসে মানুষের শরীরে। হাঁচি-কাশির মাধ্যমে এই রোগের সংক্রমণ ঘটে। ৮০৯৬ জনের শরীরে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ে।

ইবোলা: 2014 সালে পশ্চিম আফ্রিকার গিনি এই ভাইরাসের সংক্রমণের দেখা মেলে। তারপর আস্তে আস্তে আফ্রিকার অন্যান্য দেশগুলিতে এই সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ে। 28 হাজার মানুষের দেহে এই রোগের সংক্রমণ মেলে।