বাংলায় রাষ্ট্রপতি শাসন ছাড়া ঠিক ঠাক ভোট হবে না, শাহকে জানালেন কৈলাস-মুকুল

আসন্ন একুশের বিধানসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিজেপি এবং তৃণমূলের মধ্যে বাংলা দখলের লড়াই চলছে। ভোট প্রচারে স্ট্র্যাটেজি হিসেবে কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ সম্প্রতি বাংলা সফরে এসেছেন। বুধবার রাতে কলকাতায় পৌঁছেই তিনি দিলীপ ঘোষ, মুকুল রায়, অরবিন্দ মেনন, কৈলাস বিজয়বর্গীয়ের মতো রাজ্যের বিজেপি নেতৃত্বদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন।

সূত্রের খবর, এদিনের বৈঠকে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে রাজ্যের বিজেপি শীর্ষ নেতারা ভোটের আগে পশ্চিমবঙ্গের রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করার আবেদন জানিয়েছেন। বিশেষ করে মুকুল রায় এবং কৈলাস বিজয়বর্গীয় বঙ্গে ৩৫৬ ধারা জারি করার প্রসঙ্গে জোর দিয়েছেন। মুকুল রায়ের বক্তব্য, এ রাজ্যের পুলিশ নিজেদের তৃণমূলের জেলা সভাপতি বলে মনে করেন। মুখ্যমন্ত্রীর অঙ্গুলিহেলনে পশ্চিমবঙ্গে রীতিমতো “পুলিশ রাজ” চলছে বলে দাবি করেন মুকুল রায়।

কৈলাস বিজয়বর্গীয় এ প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে বলেছেন, রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করা না হলে পশ্চিমবঙ্গের সুষ্ঠুভাবে ভোট পর্ব সম্পন্ন হবে না। রাজ্যবাসীর সাধারণ গণতান্ত্রিক অধিকার খর্ব হবে। রাজ্য পুলিশ সাধারণ মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার রক্ষা করতে ব্যর্থ। কেন্দ্রীয় সেনাবাহিনীর সহায়তা ছাড়া পশ্চিমবঙ্গে নির্বিঘ্নে ভোট প্রচার সম্পন্ন করা যাবে না বলেই দাবি করেছেন তিনি।

উল্লেখ্য, রাজ্যের বিজেপি নেতৃত্বরা ইতিপূর্বে বহুবার বাংলায় রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করার আবেদন জানিয়েছেন। তবে, রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের দাবি, ভোটের আগে এ রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করা হলে পরোক্ষে তৃণমূল সরকার সহানুভূতি পেয়ে যাবেন। যার ফলে বিজেপির বাংলা দখলের স্বপ্ন অধরাই থেকে যেতে পারে। তবুও রাজ্যের বিজেপি নেতৃত্বরা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের কাছে এ প্রসঙ্গে আবেদন জানাচ্ছেন। কারণ তাদের মতে, বাংলায় যদি সঠিকভাবে নির্দিষ্ট নিয়ম মেনে ভোট পর্ব পরিচালনা করতে হয় তাহলে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হওয়া জরুরী। নতুবা তৃণমূল সরকার ভোট প্রভাবিত করতে পারে।