দেশ চালানোর ম’তো কোনো টা’কা নেই হা’তে! কার্যত দুনিয়ার কাছে স্বী’কা’র করে নিলেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান

চরম অর্থনৈতিক সংকটে ভুগছে পাকিস্তান। মঙ্গলবার সেকথা কার্যত স্বীকার করে নিলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। মঙ্গলবার একটি অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে তিনি জানালেন তার শাসনকালে পাকিস্তানের অবস্থা শোচনীয়। সরকারের কাছে এই মুহূর্তে দেশ চালানোর মত টাকা নেই। তাই অন্য দেশের থেকে ঋণ নিতে হচ্ছে তাদের।

বৈদেশিক ঋণ বৃদ্ধি এবং কর রাজস্ব কমে যাওয়াটা কোথাও জাতীয় নিরাপত্তার ক্ষেত্রে সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে স্বীকার করে নেন ইমরান খান। তিনি আরো বলেছেন, এই মুহূর্তে সরকারের কাছে জনকল্যাণে ব্যয় করার মতো পর্যাপ্ত অর্থ নেই। ইসলামাবাদের ফেডারেল বোর্ড অফ রেভিনিউ এর প্রথম ট্র্যাক এন্ড ট্রেস সিস্টেমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে ইমরান খান এমনই বিস্ফোরক তথ্য তুলে ধরলেন।

ইমরান খান এদিন স্পষ্টতই স্বীকার করে নেন, পাকিস্তানের হাতে পর্যাপ্ত অর্থ নেই। তাই বাধ্য হয়ে অন্য দেশের কাছে ঋণ নিতে হচ্ছে। ইমরান খান আক্ষেপ করেন, সেই ঔপনিবেশিক যুগ থেকেই কর না দেওয়ার প্রবণতা চলে আসছে সাধারণের মধ্যে। সকলের মনে করেন তাদের দেওয়া টাকা ঠিক মতো খরচ করা হচ্ছে না। সে কারণে চিনি, তামাকজাত দ্রব্য, সারের মতো বেশ কিছু ক্ষেত্রে উৎপাদন এবং বিক্রির ওপর নজরদারি চালানোর উদ্দেশ্যে এই সিস্টেম লাগু করা হচ্ছে।

ইমরান খান মনে করেন পাকিস্তানের অর্থনৈতিক অবস্থা এতে স্থিতিশীল হবে এবং রাজস্ব বাড়বে। ইমরান খান অবশ্য পাকিস্তানের বর্তমান অর্থনৈতিক পরিস্থিতির জন্য প্রাক্তন সরকারকেই দায়ী করেছেন।