এবার দেশীয় প্ৰযুক্তিতেই হবে করোনা চিকিৎসা, আসরে ভারত বায়োটেক ও আইসিএমআর

ভারতে প্রথম পর্বে সেভাবে করোনা থাবা বসায়নি কিন্তু আস্তে আস্তে যেভাবে করোনা আধিপত্য বিস্তার করার পথে এগোচ্ছে তাতে চিন্তিত সকলেই। যদিও কেন্দ্রীয় সরকার বিভিন্ন ভাবে করোনা মোকাবিলার চেষ্টা করছেন। তাই পরিস্থিতির ওপর বিবেচনা করে তৃতীয় দফার লকডাউন ঘোষনা করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। ভারতে হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন দিয়ে করোনার টিকা হিসেবে চালানো হলেও তাতে যে বিশেষ সাফল্য মিলেছে এমনটাও নয়।

কিন্তু এরই মধ্যে এবার ভারত সরকার করোনা প্রতিরোধের জন্য নয়া উপায় বাতলালো। আইসিএমআরএর ও ভারত বায়োটেকের উদ্যোগে এবার করোনা প্রতিরোধের দিকে যাচ্ছে ভারত।জানা গিয়েছে ভারত বায়োটেককে পুনের ভাইরোলজি ও আইসিএমআর বিভিন্ন ভাবে সাহায্য করবে।

তাই তো ভারত বায়োটেকে ইতিমধ্যেই পুনের ন্যাশানাল ইনস্টিটিউট অব ভাইরোলজি স্ট্রেইন পাঠানো শুরু করেছে। পাশাপাশি জানানো হয়েছে যদি সাফল্য আসে তাহলেই তা মানুষের শরীরে প্রবেশ করোন হবে। পরবর্তী কালে ওষুধটিকে ডাক্তারি ভাবে স্বীকৃতি দেওয়া হবে।

প্রসঙ্গত ভারতে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে প্রায় ষাট হাজারের কাছাকাছি। মৃতের সংখ্যা এক হাজার নয়শোর অনেকটাই বেশি। যা নিয়ে ইতিমধ্যেই চিন্তা বাড়ছে দেশের জন্য। কারণ যেকোনো পরিস্থিতিতে দেশের বিভিন্ন জায়গায় করোনা ভাইরাস ছেয়ে যাবে এই আশঙ্কায় দিন গুনছেন সকলে।