ভারতীয় টি’কা’য় নেই ভ’র’সা, এখনো টি’কা নেননি সোনিয়া-রাহুল

করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ের হাতিয়ার হিসেবে ভারতের কাছে এই মুহূর্তে তিনটি ভ্যাকসিন রয়েছে। কোভিশিল্ড, কো ভ্যাকসিন, এবং রাশিয়ার স্পুটনিক’ ডি রয়েছে ভারতের হাতে। দেশবাসীকে অবিলম্বে ভ্যাকসিন নেওয়ার জন্য উদ্বুদ্ধ করছেন কেন্দ্রীয় সরকার। করোনাকে প্রতিহত করতে গেলে ভ্যাকসিন ছাড়া উপায় নেই। অথচ দেশের রাজনৈতিক প্রতিনিধিরাই যদি ভ্যাকসিন না নেন, বা ভ্যাকসিনের উপর আস্থা না রাখেন, তাহলে সাধারণ মানুষের মনের উপর তার কি প্রভাব পড়বে?

সম্প্রতি কেন্দ্রীয় সংসদের মন্ত্রী প্রহ্লাদ যোশী দাবি করলেন যে কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী, রাহুল গান্ধীরা এখনো পর্যন্ত ভ্যাকসিন নেননি। কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর দাবি, রাহুল, সনিয়া ভারতের তৈরি ভ্যাকসিনের উপর আস্থা রাখেন না। অথচ ওয়েনাড়ে রাহুল গান্ধী ভ্যাকসিন উদ্যোগের বিস্তার নিয়ে রাজনীতি করে চলেছেন, দাবি কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর।

তিনি এও বলেছেন, এর আগে জানুয়ারি মাস থেকে যখন গণহারে টিকাকরণ কর্মসূচি শুরু হয় তখন কংগ্রেস ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিল। কো ভ্যাকসিনকে ছাড়পত্র দেওয়া নিয়ে প্রবল আপত্তি জানিয়েছিল কংগ্রেস। তবে ভ্যাকসিন নিয়ে মতবিরোধ খর্ব করতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি স্বয়ং ভ্যাকসিনের ডোজ নেন। এখন কংগ্রেসের বহু নেতাই ভ্যাকসিন নিয়েছেন। তবে রাহুল এবং সোনিয়া এখনো ভ্যাকসিন নেননি বলে জানাচ্ছেন প্রহ্লাদ যোশী।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, করোনা ভ্যাকসিন নিয়ে প্রথম প্রশ্ন তুলেছিলেন সমাজবাদী পার্টির নেতা অখিলেশ যাদব। প্রথমে তিনি এই ভ্যাকসিনকে বিজেপি ভ্যাকসিন বলেছিলেন! পরে অবশ্য বিতর্কের মুখে পড়ে তিনি সুর নরম করেন এবং বলেন যে তিনিও ভ্যাকসিন নেবেন।