সারা বিশ্ব খুঁজে বেড়াচ্ছে দাউদ সমেত ২১ কুখ্যাত জঙ্গিকে, তাদের জামাই আদর করছে পাকিস্তান

আন্তর্জাতিক মহলের তরফ থেকে বিশ্বের “সন্ত্রাসবাদের ধূসর তালিকা”র অন্তর্ভুক্ত রাষ্ট্র পাকিস্তান মুখে যতই সন্ত্রাসবাদ বিরোধী প্রচার চালাক, অন্ততপক্ষে ২১ জন কুখ্যাত সন্ত্রাসবাদীকে এখনো নিজ রাষ্ট্রে আশ্রয় দিয়ে রেখেছে। শুধু তাই নয়, পাক প্রশাসনের তরফ থেকে রীতিমতো ভিআইপি সুযোগ-সুবিধা পায় অন্যান্য দেশে মোস্ট ওয়ান্টেড কুখ্যাত জঙ্গী সংগঠনের নেতারা। সম্প্রতি, বিশিষ্ট সংবাদ সংস্থা এএনআইয়ের রিপোর্ট থেকে এমন তথ্যই প্রকাশ্যে এসেছে।

এনআইএয়ের রিপোর্ট অনুসারে, আন্ডারওয়ার্ল্ড ডন দাউদ ইব্রাহিম, খলিস্তান জিন্দাবাদ ফোর্সের জঙ্গি নেতা রঞ্জিত সিং নীতা, বাব্বর খালসা ইন্টারন্যাশানালের প্রধান রিয়াজ ভাটকল, মিরজা সাদাব বাইগ, আফিফ হাসান সিদ্দিবাপা, ওয়াদহা সিং-এর মতো অন্তত ২১ জন আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদিকে নিজ রাষ্ট্রে অত্যন্ত যত্নের সাথে আশ্রয় দিয়ে রেখেছে পাকিস্তান। এই জঙ্গিরা পাকিস্তানে রীতিমতো ভিআইপি মর্যাদা পেয়ে থাকে। ভারতসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ এদের প্রতিনিয়ত খুঁজে চলেছে।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি রাষ্ট্র সংঘের তরফ থেকে জেনেভায় আয়োজিত মানবাধিকার পরিষদের ৪৫তম অধিবেশনে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদ এবং সংখ্যালঘু নির্যাতনের অভিযোগ তোলে ভারত। এই বৈঠকে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সরাসরি সে দেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায় তথা হিন্দু, শিখ ও খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের উপর দীর্ঘদিন ধরে অত্যাচার চালানোর অভিযোগ তোলেন ভারতীয় প্রতিনিধি। পাশাপাশি ওই দিনের বৈঠকে পাকিস্তানের ভারতকে প্রতি পদে পদে বিশ্বের কাছে অপদস্থ করে নিজের কুকার্যসিদ্ধি করার উদ্দেশ্য সম্পর্কে অভিযোগও তোলে ভারত।

উল্লেখ্য, ইতিমধ্যেই সন্ত্রাসবাদি কার্যকলাপে মদত দেওয়ার অভিযোগে পাকিস্তানকে ধূসর তালিকাভুক্ত করেছে এফটিএফ। জঙ্গি তোষণ নীতি বন্ধ না হলে ধূসর তালিকা থেকে যেকোনো মুহূর্তে পাকিস্তানকে কালো তালিকার অন্তর্ভুক্ত করে দিতে পারে আন্তর্জাতিক মহল। ফলে আন্তর্জাতিক মহলের কাছে নিজেদের নিরাপরাধ প্রমাণ করার জন্য গত মাসে ৮৮ জন দাগী জঙ্গিনেতার উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে পাকিস্তান। তবে পাকিস্তানের এই পদক্ষেপকে নিতান্তই ছলনা বলে দাবি করছে কূটনৈতিক মহল।