প্রতিদিন ভোল পাল্টাচ্ছে আবহাওয়া, রোদ না বৃষ্টিতে ভিজবে গোটা বাংলা, বড়ো আপডেট দিলো হাওয়া অফিস

হাতে আর বেশী দেরি নেই। কারণ করোনা আবহ যতই আসুক না কেনো, বাঙ্গালীর দূর্গাপূজা আটকাতে পারবে না। তবে হ্যা আগের বারের মতো হয়ত তেমন একটা মজা হবে না। কারণ সবার মনেই যে আতঙ্ক করোনার। তবে পূজা আসলেই যে শরতের আকাশ একেবারে রোদে ঝলমল করে ওঠে, সাথে পেজা তুলোর মতো ছেড়া ছেড়া মেঘ ঘুড়ে বেড়ায় সেই দৃশ্য নাকি একহ্ন অনেক জায়গায় দেখা যাচ্ছে, তার মানে কি আবহাওয়া একেবারে পরিবর্তন হয়ে গেলো? কিন্তু এর উত্তর আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে, আসলে এখনই এই আশা করা উচিৎ না। কারণ আগামী ৩-৪ দিনের মধ্যেই রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা আছে। উত্তর বঙ্গ সহ দক্ষিণবঙ্গের সব জায়গায়।

যার ফলে আনন্দ মাটি হয়ে যেতে পারে বলেও সম্ভাবনা করছে বিশেষজ্ঞরা।আজ সকাল থেকেই কলকাতার আকাশ মেঘলা, আর তার ফলেই স্বাভাবিকভাবেই আর্দ্রতা জনিত অস্বস্তি। এদিকে তাপমাত্রা ওঠা নামা করছে অনেকটাই। আজ কলকাতার সর্বিনিম্ন তাপমাত্রা ২৭ ডিগ্রীর ঘরে ও সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৪ ডিগ্রীর ঘরে। এদিকে আবার বাতাসে আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ ৯৫% এর ওপরে। যার ফলেই এই দক্ষিণ বঙ্গের আবহাওয়া একেবারেই স্বস্তির নয়।

এদিকে আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে, আসলে আগামীকাল রবিবার উত্তরবঙ্গের ৫ জেলায় কোচবিহার, জলপাইগুড়ি, আলিপুরদুয়ার, দার্জিলিং, কালিংপং সব জায়গায় এই ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা আছে। সাথে উত্তর পূর্ব ভারতেও একটা ভারী প্রভাব পরতে চলেছে, বিশেষ করে অসম, মেঘালয়, সিকিম সব জায়গায়। দক্ষিণ বঙ্গের কথা বলতে গেলে উপকূলের জেলাগুলোতে ভালো প্রভাব পরবে। কারণ এখন দক্ষিণের দিকে সড়ে আসছে মৌসুমী অক্ষরেখা। জানা গেছে আগামী ২৪ ঘন্টার মধ্যেই এই বৃষ্টি শুরু হতে পারে উত্তরবঙ্গে, তবে আগামী সপ্তাহ থেকে বৃষ্টির পরিমাণ বাড়বে দক্ষিণ বঙ্গেও।