দেশ ব্যাপী অ’ক্সি’জে’ন স’র’ব’রা’হে মোদির ডা’কে সা’ড়া দিলো টাটা গোষ্ঠী

আরো একবার দেশের নানা প্রান্ত থেকে করোনা সংক্রমনের কথা শোনা যাচ্ছে। দিন দিন বেড়েই চলেছে আক্রান্তের সংখ্যা। সম্প্রতি আক্রান্তের সঙ্গে পাল্লা দিতে গিয়ে অক্সিজেনের অভাব দেখা যাচ্ছে বিভিন্ন রাজ্য থেকে। এই বিষয়ে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল কেন্দ্রের কাছে সাহায্য প্রার্থনা করেছেন। এই পরিস্থিতিতে টাটা গোষ্ঠী ঘোষণা করেছেন যে, দেশের অক্সিজেন উৎপাদন এবং সরবরাহ বাড়ানোর জন্য সরকারকে সবরকম সাহায্য করবেন তারা।

সম্প্রতি মঙ্গলবার টাটা গোষ্ঠী টুইটারে লিখেছেন যে, করোনার বিরুদ্ধে ভারতকে লড়াই করতেই হবে। ভারত কে শক্তিশালী করার জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করব আমরা। টাটা গোষ্ঠী ঘোষণা করেছে যে, দেশের অক্সিজেনের ঘাটতি কাটিয়ে ওঠার জন্য তরল অক্সিজেন পরিবহন করতে হবে, তার জন্য ২৪ টি ক্রায়োজেনিক আমদানি করা হবে।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী টাটা গ্রুপের পদক্ষেপকে সাদর আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। ভারতবাসীকে একসঙ্গে লড়াই করতে হবে এই বার্তা জানিয়েছেন তিনি। অন্যদিকে মুকেশ আম্বানির রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড তার তেল শোধনাগারে প্রতিদিন ৭০০ টন মেডিকেল অক্সিজেন উৎপাদন করছে। ক্ষতিগ্রস্ত রাজ্যগুলোকে বিনামূল্যে সরবরাহ করা হবে, এমন উদ্দেশ্য নিয়ে তারা এই কাজ করছেন।

গুজরাটে রিলায়েন্সের জামনগর শোধনাগার প্রাথমিকভাবে ১০০ টন মেডিকেল অক্সিজেন তৈরি করে যা এতদিনে ৭০০ টন করে ফেলেছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির মঙ্গলবার রাতে জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দেন। ভাষণ দিতে গিয়ে তিনি বলেন যে, আমাদের ভারতবর্ষে একসাথে লকডাউন করা যাবে না। দেশকে লকডাউন এর হাত থেকে বাঁচাতে হবে কোন ভাবে। তার জন্য এগিয়ে আসতে হবে সকলকে। অক্সিজেন উৎপাদন এবং সরবরাহ বাড়ানোর জন্য ব্যবস্থা করা হচ্ছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

গতকাল রবিবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রসচিব অজয় ভাল্লা রাজ্যের মুখ্যসচিব নির্দেশ দিয়ে বলেছেন যে, সংশ্লিষ্ট রাজ্যের নির্দিষ্ট নয়টি শিল্প ছাড়া অন্যান্য শিল্পে যে অক্সিজেন ব্যবহার করা হয়, সেটি এখন রোগীদের জন্য ব্যবহার করতে হবে। এই সিদ্ধান্তটি কার্যকর হবে ২২ এপ্রিল থেকে। এই ভাবেই একমাত্র গোটা দেশকে বাঁচানোর যাবে বলে জানিয়েছে তারা।