মশলা রেডি আছে, আমিষ নির্বাচন হবে এবার, বারাসতে দাঁড়িয়ে হুঙ্কার মদন মিত্রের

নির্বাচন মানেই বাক-বিতন্ডা, অভিযোগ পাল্টা অভিযোগ, হুঁশিয়ারি পাল্টা হুঁশিয়ারির লড়াই। এই লড়াইয়ে পিছিয়ে নেই বাংলা। চলতি দফার বিধানসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে রাজ্য রাজনীতি উত্তাল। একদিকে বিজেপি তৃণমূল কর্মীদের দলে অন্তর্ভুক্ত করিয়ে আটঘাট বেঁধে নির্বাচনী লড়াই লড়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে। অপরপক্ষে তৃণমূলও অবশ্য পিছিয়ে নেই। রাজ্য শাসক দল রাজ্যের মসনদ ধরে রাখার মরিয়া প্রচেষ্টা চালাচ্ছে।

তৃণমূল দলের এককালীন প্রতাপশালী তথা মমতা ঘনিষ্ঠ নেতা হিসেবে পরিচিত মদন মিত্রও লড়াইয়ে সামিল হয়েছেন। শনিবার বারাসাতে মহিলা তৃণমূল কংগ্রেসের সমাবেশে অংশগ্রহণ করে বিরোধী শিবিরকে রীতিমতো চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিলেন তিনি। এমনকি প্রয়োজনে নির্বাচন কমিশনকেও “লাল কার্ড” দেখানোর হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি। সদ্য দলত্যাগী শুভেন্দু অধিকারীকেও কটাক্ষ করতে ছাড়েননি মদন মিত্র।

এদিনের সমাবেশে দাঁড়িয়ে শুভেন্দু অধিকারী প্রতি তার চ্যালেঞ্জ, তৃণমূল কি তা শুভেন্দু খুব তাড়াতাড়িই বুঝতে পারবেন। প্রসঙ্গত, ৬ই ফেব্রুয়ারি তৃণমূলের যুব নেতা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় কাঁথিতে জনসভা করবেন। সেখানেই রাজ্যে তৃণমূলের অবস্থান স্পষ্ট হয়ে যাবে বলে দাবি করেছেন মদন মিত্র। তিনি এও বলেছেন, নির্বাচনের সকল মশলা রেডি! এই মশলা কিন্তু কোনো নিরামিষ মশলা নয়। এই মশলা দিয়ে নির্বাচনী আমিষ চাপ বিরিয়ানি হবে!

বারাসতের জনসভা থেকে এমনই তাৎপর্যপূর্ণ মন্তব্য করেছেন মদন মিত্র। সম্প্রতি বিশিষ্ট একটি টিভি চ্যানেলে বিজেপি নেতা অর্জুন সিংয়ের সঙ্গে বাক-বিতণ্ডায় জড়িয়ে বেশ বিতর্ক সৃষ্টি করেছিলেন মদন মিত্র। “দিদির কাছে বকা খেয়ে”, দলের ভাবমূর্তি বজায় রাখতে অবশ্য শেষমেষ ফেসবুক লাইভে এসে তিনি নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনাও করেছেন।