মন্দিরে ভগবানের স্থা’নে মা-বাবার মূ’র্তি বসালেন ছেলে, দৃ’ষ্টা’ন্ত স্থা’প’ন করলেন বর্ধমানের ছেলে

বাবা মা কে ভগবানের রূপ বলেই মনে করা হয়। কিন্তু আমাদের মধ্যে কজন তার মনে করি। ভারতবর্ষের যেকোনো জায়গায় যাওয়া হোক না কেন, মানুষের তৈরি বৃদ্ধাশ্রম আমরা সকলেই দেখতে পাবো। দেখতে পাবো সেই বৃদ্ধাশ্রমের রয়েছেন বহু বহু মানুষ। বহু পিতা মাতার বাড়ি থেকে বেরিয়ে বৃদ্ধাশ্রমে আশ্রয় নিয়েছেন। কিন্তু আজ এক মানুষের কথা আপনাকে জানাবো, যিনি নিজের বাবা-মাকে দেবতার আসনে বসিয়ে পুজো করেন প্রত্যেকদিন। এই গল্পটি আজ আপনাকে বলব যা শুনলে আপনিও কিছুটা হলেও হকচকিয়ে যাবেন।

বর্ধমান শহরের পুলিশ লাইন এলাকার বাসিন্দা হলেন কামিনী বিশ্বাস। কামিনী বাবু তার বাবা-মাকে স্বয়ং ভগবান বলে মনে করতেন চিরকাল। বাবা মাকে দেবতার আসনে বসিয়ে মন্দির তৈরি করে তিনি অনন্য দৃষ্টান্ত তৈরি করেছেন সকলের সামনে। কামিনী বাবু পেশায় একজন অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মি। তিনি এবং তার স্ত্রী দুজনে মিলে বাবা-মাকে চিরকাল নিজেদের কাছে জীবন্ত করে ধরে রাখার জন্য এই অভিনব উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। বাবা-মায়ের একটি মূর্তি তৈরি করে সেটিকে মন্দিরের একেবারে মাঝখানে কাচের ঘরে বসিয়ে রেখেছেন তারা। ভক্তি সহকারে তাদেরকে পুজো করেন তিনি প্রত্যেকদিন।

অবশ্যই এখানেই শেষ নয় কথা। নিজের বাবা-মায়ের নামে দাতব্য চিকিৎসালয় শুরু করেছেন তিনি। বাবা মাকে শ্রদ্ধা জানানোর পাশাপাশি মানুষের সেবা করা হয় তার। কামিনী বাবুর এই অভিনব উদ্যোগ কে সেখানকার মানুষজন কুর্নিশ জানিয়েছেন। প্রতিদিন যেখানে বাবা-মায়েরা নির্যাতিত হন সন্তানের কাছে, সেখানে তেমন একজন সন্তানের কথা শুনতে পাওয়া গেলে সত্যিই গর্বে বুক ভরে যায়।