উচ্চ-প্রাথমিকে নিয়োগ প্রক্রিয়া নিয়ে নোটিশ জারি করলো স্কুল সার্ভিস কমিশন

প্রাথমিক শিক্ষক পদে নিয়োগ পদ্ধতি নিয়ে টালবাহানার মাঝেই উচ্চ প্রাথমিকে যোগ্যতম প্রার্থী নিয়োগের ক্ষেত্রে বিজ্ঞপ্তি জারি করলো রাজ্য সরকার। কলকাতা হাইকোর্টের রায়কেমান্যতা দিয়ে সম্প্রতি স্কুল সার্ভিস কমিশনের তরফ থেকে এ-সংক্রান্ত একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে। কমিশনের তরফ থেকে প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তি অনুসারে, আগামী বছরের ৪ঠা জানুয়ারি থেকেই প্রার্থীদের নথি যাচাই প্রক্রিয়া শুরু হবে।

উল্লেখ্য, কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশ অনুসারে আগামী বছরের ৩১শে জুলাইয়ের মধ্যেই উচ্চ প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হবে। সেই অনুসারেই চাকরিপ্রার্থীদের নথি যাচাই প্রক্রিয়া শুরু করে দিতে চাইছে স্কুল সার্ভিস কমিশন। কমিশনের নির্দেশ অনুসারে আগামী বছরের ২০শে জানুয়ারি পর্যন্ত কমিশনের কাছে নথি জমা দেওয়া যেতে পারে। এক্ষেত্রে অবশ্য চাকরিপ্রার্থীদের অনলাইনে পিডিএফ ফরম্যাটে নিজেদের নথিপত্র সংশ্লিষ্ট সংস্থার ওয়েবসাইটে পাঠাতে হবে।

হাইকোর্টের নির্দেশ জারি হওয়ার পর থেকেই চাকরি প্রার্থীরা নিয়োগ প্রক্রিয়া নিয়ে কিছুটা হলেও স্বস্তি পেয়েছেন। কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশ অনুসারে নিয়োগ প্রক্রিয়ার স্বচ্ছতা বজায় রাখতে হবে। রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে ইতিপূর্বে শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া নিয়ে ব্যাপক গাফিলতি এবং স্বজনপোষণের অভিযোগ উঠেছে। এমতাবস্থায় হাইকোর্টের নতুন নির্দেশ অনুসারে নতুন করে প্যানেল বানিয়ে যোগ্যতম প্রার্থী বাছাই প্রক্রিয়া সম্পাদন করার নির্দেশ পেয়েছে কমিশন।

উল্লেখ্য, আসন্ন একুশে নির্বাচন উপলক্ষে চাকরি প্রার্থীরা কিছুটা হলেও উদ্বেগে ভুগছিলেন। ভোট পর্বে নিয়োগ প্রক্রিয়া কিভাবে সম্পন্ন হবে তা নিয়ে তাদের মধ্যে বেশ জল্পনা শুরু হয়েছিল। এছাড়াও করোনা পরিস্থিতিতে নিয়োগ প্রক্রিয়া কিভাবে সম্পন্ন হবে তাই নিয়েও তাদের মধ্যে প্রশ্ন উঠেছিল। তবে কমিশনের নতুন নির্দেশ অনুসারে অনলাইনেই প্রার্থীদের নথি পত্র যাচাই করা হবে। দীর্ঘদিনের টালবাহানার পর অবশেষে নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হওয়াতে কার্যত বেশ স্বস্তিতে চাকরিপ্রার্থীরা।