১৫ নভেম্বরের আগে খুলছে না স্কুল, হাই কোর্টকে জানিয়ে দিল রাজ্য সরকার

রাজ্য সরকারের তরফ থেকে গৃহীত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, রাজ্যের সমস্ত স্কুল আগামী ১৫ই নভেম্বর পর্যন্ত বন্ধ রাখা হবে। কলকাতা হাইকোর্টে দায়ের হওয়া একটি মামলার পরিপ্রেক্ষিতে, সোমবার রাজ্য সরকারের তরফ থেকে কোর্টে এমনটাই জানানো হলো। ইতিমধ্যেই রাজ্যের প্রতিটি স্কুল কর্তৃপক্ষকে এ সংক্রান্ত নির্দেশিকা পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছে রাজ্য।

উল্লেখ্য, বাংলার করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে। বাংলায় ইতিমধ্যেই গোষ্ঠী সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। বিজেপি নেত্রী তথা আইনজীবী প্রিয়াঙ্কা টিব্রেওয়াল সম্প্রতি কলকাতা হাইকোর্টে এখনই রাজ্যের স্কুল গুলিকে না খোলার দাবি জানিয়ে আবেদন করেন। তার বক্তব্য ছিল, ১২ বছরের কম বয়সী শিশুদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এমনিতেই কম থাকে। করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না আসা পর্যন্ত স্কুল খোলা পড়ুয়াদের স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকারক হতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন তিনি।

এদিন কলকাতা হাইকোর্টে রাজ্যের তরফ থেকে বিবৃতি শোনার পর বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় ও বিচারপতি অরিজিত বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডিভিশন বেঞ্চ জানিয়ে দেয়, রাজ্যের তরফ থেকে যেহেতু ইতিমধ্যেই স্কুল খোলার ক্ষেত্রে ১৫ই নভেম্বরের মেয়াদ নির্ধারণ করা হয়েছে, তাই এ বিষয়ে আর হস্তক্ষেপ করবে না কোর্ট। এসংক্রান্ত পরবর্তী শুনানির দিন পুজোর ছুটির পর নির্ধারণ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ইউজিসির তরফ থেকে একটি নির্দেশিকা প্রকাশ করে জানানো হয়, ১লা নভেম্বর থেকেই দেশের প্রতিটি কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন শিক্ষাবর্ষ চালু করতে হবে। ইউজিসির এই নিদানের পরিপ্রেক্ষিতে বাংলার শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় জানান, ৩১শে অক্টোবর যেহেতু স্নাতকোত্তরের পরীক্ষা শেষ হচ্ছে, অতএব ১লা নভেম্বর থেকে ক্লাস শুরু করা সম্ভব নয়। নভেম্বর মাসটা ভর্তি প্রক্রিয়াতেই যাবে বলে তিনি জানিয়েছেন। তবে আগামী ১লা ডিসেম্বর থেকে স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর এর ক্লাস শুরু করার কথা জানিয়েছেন তিনি। তবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না আসা অব্দি, আপাতত অনলাইনেই ক্লাস নেওয়া হবে বলে জানা গেছে।