একটিই ঘর, স্ত্রী অন্তঃসত্ত্বা হওয়ায় বা’থ’রু’মে’ই আ’ই’স’লে’শ’নে ধুপগুড়ির ক’রো’না আ’ক্রা’ন্ত যুবক

দেশ তথা রাজ্যের করোনা পরিস্থিতি ক্রমশ ভয়াবহ হয়ে উঠছে। এক দেশের প্রায় প্রতিটি পরিবারেই কেউ না কেউ করোনা আক্রান্ত হচ্ছেন। হাসপাতালের বেডের অভাব, অক্সিজেনের অভাব তো ছিলই। এখন আবার করণা সেফহোম কিংবা কোয়ারেন্টাইন সেন্টারেও আক্রান্ত রোগীদের জায়গা হচ্ছে না। এদিকে করোণা আক্রান্ত রোগীদের তাদের পরিবারের থেকে স্বতন্ত্র হয়ে থাকার পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিৎসকেরা।

তবে সবার বাড়িতেই তো আর করোনা রোগীর জন্য আলাদা ঘর কিংবা বাথরুমের বন্দোবস্ত নেই। তাই পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের শরীর-স্বাস্থ্যের কথা ভেবে অনেকেই আবার ঘরের অভাবে বাথরুমেই থাকার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করছেন! ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরবঙ্গের ধুপগুড়িতে। এক যুবকের শরীরে করোনার উপস্থিতি টের পাওয়া যেতেই তিনি নিজেকে বাথরুমে আইসোলেশন করে নিয়েছে!

বাড়িতে বৃদ্ধ বাবা-মা, স্ত্রী সন্তানসম্ভবা। এই পরিস্থিতিতেই যুবকের শরীরে করোনার উপস্থিত ধরা পরে। তবে নিম্নবিত্ত পরিবারে আলাদা হয়ে থাকার কোনো উপায় নেই। তাই শেষমেষ তিনি আর কোন উপায়ান্তর খুঁজে না পেয়ে বাথরুমে নিজেকে আলাদা করে নেন। এমন করুণ পরিস্থিতির কথা জানতে পেরে সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রশাসনের বিরুদ্ধে সমালোচনার ঝড় বয়ে যাচ্ছে।

ধুপগুড়ি পৌরসভার ভাইস চেয়ারম্যান রাজেশ সিং এই বিষয়ে জানিয়েছেন, খবর পেয়ে করোনা রোগীকে দ্রুত করোনা হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। তিনি আরো জানিয়েছেন, ওই যুবকের পরিবারের তরফ থেকে প্রশাসনকে কিছু জানানো হয়নি। তাই তারা বিষয়টি জানতেন না। তবে জানার পরপরই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।