দিনহাটা শিক্ষিকা ধ’র্ষণ কাণ্ডে অভিযুক্ত টিএমসি নেতা নূর আলমকে শোকজ করলো দল

শিক্ষিকা ধর্ষণে অভিযুক্ত দিনহাটার প্রভাবশালী তৃণমূল কংগ্রেসের নেতা তথা কোচবিহার জেলা পরিষদের কর্মাধ্যক্ষ নূর আলম হোসেনকে এক সপ্তাহের সময় দিয়ে শোকজ করল তৃণমূল কংগ্রেস। শনিবার সকালে কোচবিহার জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি বিনয় কৃষ্ণ বর্মণ সাংবাদিক সম্মেলন করে এই শোকজের কথা জানান। এদিন সেখানে উপস্থিত ছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা কার্যকারী সভাপতি পার্থ প্রতিম রায়ও।

বিনয় বাবু বলেন, “দলের সিতাই বিধানসভার ওয়ার্কিং কমিটির কনভেনার নূর আলম হোসেনের বিরুদ্ধে জনৈক শিক্ষিকা ধর্ষণের অভিযোগ এনেছেন। ওই অভিযোগের কথা জানতে পারার পর সিতাই এলাকার দলীয় বিধায়ক জগদীশ বসুনিয়ার সাথে আমার কথা হয়। তারপরেই শোকজ করা হচ্ছে। ওই অভিযোগের পরিপেক্ষিতে কেন বহিষ্কার করা হবে না? তা জানতে চেয়ে শোকজ করা হয়েছে। এক সপ্তাহের মধ্যে সন্তোষজনক উত্তর না পেলে বহিষ্কারের পথে হাঁটবে দল।”

উল্লেখ্য, দিনহাটার প্রভাবশালী তৃণমূল নেতা নূর আলম হোসেনের বিরুদ্ধে টানা ধর্ষণের অভিযোগ আনেন এক শিক্ষিকা। ৩ মে রাতে ওই ঘটনা নিয়ে দিনহাটা থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়। এরপরেই দিনহাটা হাসপাতালে ধর্ষণের শিকার ওই মহিলার ডাক্তারি পরীক্ষা করা হয়। এই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়ায় ঘাসফুল শিবিরে।

অভিযোগ, দীর্ঘদিন যাবত ওই তৃণমূল নেতা ওই মহিলাকে ধর্ষণ করে গেছেন। ওই মহিলা অভিযোগ করে বলেন, তিনি একজন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা এবং তাঁর স্বামী হাইস্কুলের শিক্ষক। তাঁদের একটি সন্তান রয়েছে। এক সময় নূর আলম হোসেন ও তার পরিবারের সুসম্পর্ক গড়ে ওঠে। এরপরেই তাকে কু প্রস্তাব দিতে থাকে ওই তৃণমূল নেতা। শুধু তাই নয়, তাঁর প্রস্তাব ফিরিয়ে দিলে সে তাকে হুমকি দেয় বলে অভিযোগ।

এরপর গত বছর ২৬ অক্টোবর তাঁকে বাড়িতে একা পেয়ে জোর করে ধর্ষণ করে ওই তৃণমূল নেতা। আর ধর্ষণের সময় ছবি তুলে রেখে প্রতিদিন তাকে ব্ল্যাকমেল করে টানা ধর্ষণ করতে থাকে বলেও অভিযোগ। চলে প্রানে মারার হুমকিও। শেষ পর্যন্ত ভয়কে উপেক্ষা করে পুলিশ প্রশাসনের দ্বারস্থ হয় ওই নির্যাতিতা।

সব খবর সরাসরি পড়তে আমাদের WhatsApp  Telegram  Facebook Group যুক্ত হতে ক্লিক করুন

/p>