তদন্তে মাথা গরম, চিৎকার-চেঁচামেচি, সিবিআইয়ের একটি কাজেই মুখ বন্ধ রিয়ার

গত 14 ই জুন বলিউডের নবীন বিখ্যাত তারকা সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু হয়েছে। প্রাথমিক অনুমান এ এটিকে আত্মহত্যা বলে মনে করা হচ্ছে। দু মাস কেটে গেলেও সুশান্ত সিং রাজপুত এর মৃত্যুর পেছনে রয়েছেন কারা সেই রহস্য ভেদ করতে পারেনি সিবিআই আধিকারিক এবং তদন্তকারী আধিকারিকেরা। তবে এ ঘটনার পিছনে সর্বাজ্ঞে দোষী সাব্যস্ত হয়ে উঠে আসছে সুশান্ত সিং রাজপুতের প্রেমিকা রিয়া চক্রবর্তী।

গত শুক্রবার থেকে টানা কয়েকদিন ধরেই সিবিআই আধিকারিকেরা রিয়া চক্রবর্তী কেউ জেরা করছেন কিন্তু জেরা রিয়া চক্রবর্তী ও সহযোগিতা করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। প্রথম দিকে তিনি সিবিআই অফিসার দের সহযোগিতা করবেন বলে সুশান্ত সিং মৃত্যুর তদন্তের জন্য সিবিআই তদন্তের দাবি করেছিলেন। কিন্তু যখন সত্যি সত্যি সিবিআই তদন্ত শুরু হয় তখন তিনি সহযোগিতা করার বদলে করেছেন অসহযোগিতা।

রবিবার ও সোমবার ডিআরডিও গেস্ট হাউসে অভিনেত্রী রিয়াকে টানা 10 ঘন্টা জিজ্ঞাসাবাদ করে সিবিআই অফিসারা। রবিবার রিয়াকে জেরা করা শুরু হলে সিবিআই অফিসার দের ওপর গলা উঁচু করে অর্থাৎ চিৎকার করে কথা বলতে শোনা যায় অভিনেত্রী রিয়াকে। ছেড়ে কথা বলেননি সিবিআই অফিসার নুপুর প্রসাদ। সোনা যায় নুপুর প্রসাদ রিয়া চক্রবর্তী কে গালে চড় মারেন। এছাড়াও তিনি বলেন রিয়া চক্রবর্তী কে গ্রেপ্তার করা হতে পারে তবে সিবিআই তাড়াহুড়ো নেই কোন কাজ করবে না। রিয়া যদি নির্দোষ হন তাহলে আসল কালপ্রিট কে তাকে চিনিয়ে দিক।

এছাড়াও তিনি রিয়া চক্রবর্তী কে বলেন রিয়া যদি জেলে ঢুকে যান তাহলে আর বের হতে পারবেন না। তবে সিবিআই অফিসার এর এই কথাগুলোতে রিয়া চক্রবর্তীর রণচন্ডী মূর্তি ভেঙে খান খান হয়ে যায়। তবে সিবিআই অফিসার রিয়া চক্রবর্তীকে যে প্রশ্নগুলি করেন তার মধ্যে কয়েকটি প্রশ্ন জনসমক্ষে এসেছে সেগুলির মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল – রিয়া সুশান্তের মৃত্যুর জন্য নিজেকে কতটা দায়ী করে? হঠাৎ করে রিয়ার ব্যবহারের পরিবর্তনের ফলে কি সুশান্ত আত্মহত্যা করেছে? সুশান্ত সিং রাজপুত কি কখনো রিয়া চক্রবর্তী কে বলেছিলেন যে তিনি আত্মহত্যা করতে চান? এই প্রশ্নগুলোর সঠিক জবাব দেয়নি অভিনেত্রী রিয়া চক্রবর্তী।