হাসপাতাল থেকে প্রথম বার্তা মুখ্যমন্ত্রীর, নিজেই জানালেন কি হয়েছিলো সেদিন, রইলো ভিডিও

গতকালের দুর্ঘটনার জেরে আপাতত হাসপাতালেই চিকিৎসাধীন রয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পায়ে, হাতে, গলায়, বুকে গুরুতর আঘাত পেয়েছেন তিনি। পায়ে প্লাস্টার করা হয়েছে। এদিকে শ্বাসকষ্ট এবং বুকে ব্যথার উপসর্গও দেখা দিয়েছে শরীরে। তবুও মনোবল হারাননি তিনি। হাসপাতালের বেডে শুয়েই দলীয় কর্মীদের আশ্বস্ত করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। শরীরে প্রবল যন্ত্রণা রয়েছে, তবুও সেই যন্ত্রণা উপেক্ষা করেই দলীয় কর্মী সদস্যদের বার্তা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী।

এদিন কলকাতার এসএসকেএম হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে যন্ত্রণায় কাতরাতে কাতরাতেও মুখ্যমন্ত্রী বললেন, তার শরীরের যা পরিস্থিতি তাতে আগামী কয়েক দিন হয়তো হুইল চেয়ার হবে তার ভরসা। তবে প্রয়োজনে সেই হুইলচেয়ার ব্যবহার করেও রাজনীতির ময়দানে উপস্থিত থাকবেন তৃণমূল সুপ্রিমো। হুইল চেয়ারে বসেই রাজনৈতিক কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করবেন।

এদিন মুখ্যমন্ত্রী দলীয় কর্মীদের শান্ত এবং সংযত থাকার বার্তা দিলেন। দুপুরের দিকে তিনি জানিয়েছেন, তার শরীরে প্রবল যন্ত্রণা রয়েছে। পায়ের ব্যথা এবং মাথা ব্যথার মতো উপসর্গ রয়েছে। এরপর হয়তো কয়েক দিন তাকে হুইল চেয়ারে বসেই ঘুরতে হবে। সাংবাদিকদের তিনি জানিয়েছেন, গতকাল প্রণাম করার সময় ওই জায়গায় ভিড়ে ধাক্কাধাক্কি হয়।

সেই সময় পড়ে গিয়ে পায়ে চোট পান মুখ্যমন্ত্রী। প্রসঙ্গত বুধবার নন্দীগ্রামে মনোনয়ন পত্র জমা দিতে গিয়েছিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো। মন্দিরে ঘোরার সময় বিরুলিয়ার ধাক্কাধাক্কিতে তার পায়ে চোট লাগে। চোট লাগার কারণে অসহ্য যন্ত্রণায় কাতরাতে থাকেন তিনি। বর্তমানে তাঁর শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল। তবে শরীরে সোডিয়ামের অভাব রয়েছে, এমনটাই জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।