সরকারি পেনশন স্কীমে সুবিধা পাবেন প্রবীণরা, প্রতি মাসে পাবেন ৯,২৫০ টাকা

করোনাকালে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো ভারতের অর্থনীতিও বিপর্যস্ত। বিগত প্রায় দশ মাস ধরে ভারতের অর্থনৈতিক গ্রাফ নিম্নমুখী। এমতাবস্থায় বিনিয়োগকারীরা সবথেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। কারণ করোনার কারণে দেশের বেশিরভাগ ব্যাংক সুদের হার এক ধাক্কায় অনেকখানি কমিয়ে দিয়েছে। ফলে যারা পেনশন উপভোক্তা বিনিয়োগকারী, তাদের বেশ কিছুটা ক্ষতিই হয়ে গিয়েছে।

তবে এই পেনশন উপভোক্তাদের জন্যই কেন্দ্রীয় সরকারের বিশেষ স্কিম রয়েছে, যেখানে বিনিয়োগ করলে মাসিক ৯,২৫০ টাকা করে পাওয়া যায়। বিনিয়োগের টাকা থেকে যারা মাসিক পেনশন পেয়ে থাকেন তাদের জন্য রয়েছে “প্রধানমন্ত্রী ভায়া বন্দনা যোজনা”। এই যোজনার আওতায় যেকোনো ফিক্সড ডিপোজিট বা পেনশন প্রকল্পের তুলনায় অনেকটাই বেশি সুদ পাওয়া যাচ্ছে।

বর্তমানে এই স্কিমে সুদের হার বার্ষিক ৮ শতাংশ থেকে কমে ৭.৪ শতাংশে নেমে এসেছে। তবে অবশ্য বার্ষিক পেনশনের ক্ষেত্রে সুদের হার ৭.৬৬ শতাংশ ধার্য করা হয়েছে। বিনিয়োগকারীরা এই প্রকল্পের আওতায় সর্বাধিক ১৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বিনিয়োগ করতে পারেন। সর্বনিম্ন ১.৬২ লক্ষ টাকা বিনিয়োগ করলে মাসিক ১০০০ টাকা পর্যন্ত পেনশন পাওয়া যায়।

ত্রৈমাসিক পেনশনের জন্য ১.৬১ লক্ষ টাকা, আধা বছরের জন্য ১.৫৯ লাখ , বার্ষিক পেনশনের জন্য সর্বনিম্ন ১.৫৬ লাখ টাকা বিনিয়োগ করতে হয় এই যোজনার আওতায়। ২০২১ সালের মধ্যে ১৫ লাখ টাকা দিয়ে বিনিয়োগ করলে ২০৩১ সালের মধ্যে ৭.৪ শতাংশ হারে রিটার্ন পেতে শুরু করবেন বিনিয়োগকারী। ৬০ বছরের পরেই এই স্কিম থেকে সুবিধা পাওয়া যেতে পারে। ১০ বছরের মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার পর বিনিয়োগকারীর মৃত্যু হলে তার নমিনি বিনিয়োগকৃত পুরো টাকা ফেরত পাবেন।