জামিনের আবেদন খরিজ, অর্ণব গোস্বামীকে ১৪ দিনের জেল হেফাজতে পাঠালো আদালত

রিপাবলিকান টিভির সম্পাদক অর্ণব গোস্বামীকে আগামী ১৪ দিনের জন্য জেল হেফাজতে পাঠালো আলিবাগ আদালত। এক ইন্টেরিয়ার ডিজাইনার এবং তার মায়ের আত্মহত্যার ঘটনায় পরোক্ষে প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগে গত বুধবার মুম্বাই পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হন অর্ণব গোস্বামী। আলিবাগ জেলা আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী আগামী ১৮ই নভেম্বর পর্যন্ত পুলিশের হেফাজতেই থাকবেন তিনি।

উল্লেখ্য, বুধবার সকালে অর্ণব গোস্বামীর গ্রেপ্তারিকে কেন্দ্র করে মুম্বাইয়ে রীতিমত হুলুস্থুল কাণ্ড বেঁধে যায়। এদিন সকালে অর্ণব গোস্বামীর মুম্বাইয়ের লোয়ার প্যারেলের বাড়ি থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে রায়গড় পুলিশ। অর্ণব গোস্বামীর দাবি গ্রেপ্তারির সময় তার সঙ্গে অভদ্র আচরণ করা হয়েছে। দস্তুরমতো ধস্তাধস্তি করে তাকে গ্রেপ্তার করেছে মুম্বাই পুলিশ। এমন একটি ভিডিও প্রকাশ্যে এসেছে যেখানে দেখা যাচ্ছে, অর্ণবকে রীতিমতো ধাক্কা দিয়ে পুলিশের ভ্যানে তোলা হচ্ছে।

শুধু তাই নয়, রিপাবলিকান টিভি সম্পাদকের স্ত্রী, ছেলে এমনকি শ্বশুর-শাশুড়ির সঙ্গেও অত্যন্ত দুর্ব্যবহার করেছে পুলিশ, এমনটাই দাবি করেছেন অর্ণব গোস্বামী। এদিকে এদিন সন্ধ্যার সময় মুম্বাই পুলিশের তরফ থেকে আবার এক মহিলা পুলিশ অফিসারকে নিগ্রহের অভিযোগে অর্ণব গোস্বামীর বিরুদ্ধে আরও একটি এফআইআর দায়ের করা হয়েছে। উল্লেখ্য, এক সাংবাদিককে গ্রেপ্তারির ঘটনায় কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ মহারাষ্ট্র সরকারের তীব্র বিরোধিতা করছেন।

২০১৮ সালে আলিবাগের ইন্টিরিয়ার ডিজাইনার অণ্বয় নায়েক এবং তাঁর মা কুমুদ নায়েক আত্মহত্যা করেন। সুইসাইড নোটে তারা অর্ণব গোস্বামী, ফিরোজ শেখ এবং নীতেশ সারদার বিরুদ্ধে এই অভিযোগ আনেন যে, এদের প্রত্যেকের কাছ থেকেই তারা বিপুল পরিমাণে টাকা পেতেন। কিন্তু অভিযুক্তরা তা দিতে অস্বীকার করায়, আর্থিক অনটনের মধ্যে পড়েই তারা এহেন চরম সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হলেন। সেই মামলার পরিপ্রেক্ষিতে দুই বছর পর গ্রেপ্তার হলেন অর্ণব গোস্বামী। আপাতত তাকে জেল হেফাজতেই থাকতে হবে।