চীন থেকে ব্যবসা গোটাতে আগ্রহী কোম্পানিগুলোর জন্য জমি চিহ্নিত করলো কেন্দ্রীয় সরকার

এমনিতেই চিনের সঙ্গে ভারতের সম্পর্কিটা ঠিক আদায় কাঁচকলার মতো। কারণ বার বার যেভাবে বিভিন্ন ইস্যুতে বিশেষ করে সন্ত্রাসবাদ ইস্যুতে চিন পাকিস্তানের পাশে দাঁড়িয়ে সমস্যায় সায় দিয়েছে তাতে চিনের ওপর ভারতের রাগ রয়েছে। তার ওপরে আবার করোনার প্রভাব তাই এই পরিস্থিতিতে চিনের ওপরে আরও ক্ষিপ্ত ভারত। বদলা নিতে দিল মোক্ষম দাওয়াই। চিনকে ছাড়তে যে সমস্ত সংস্থা ইচ্ছুক তাদের জন্য এবার সাড়ে চার লক্ষ হেক্টর জমি চিহ্নিত করল ভারত সরকার।

বিশ্বের যেকোনো দেশের জন্যই এই সুবিধা দিতে চাইছে সরকার। তাই তো বড় মাপের জমি চিহ্নিতকরনের কাজও শুরু করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। জানা গিয়েছে ভারত সরকার নাকি ৪ লক্ষ ৬১ হাজার ৫৮৯ হেক্টর জমি এখনও পর্যন্ত চিহ্নিত করা হয়েছে, তার মধ্যে গুজরাত, মহারাষ্ট্র, তামিলনাড়ু, অন্ধ্রপ্রদেশের মতো রাজ্যগুলিতে অবস্থিত ১ লক্ষ ১৫ হাজার ১৩১ হেক্টর জমি রাখা হয়েছে। তবে যেহেতু লকডাউনের জন্য দেশে বিদেশি বিনিয়োগ বন্ধ তাই বিদেশি বিনিয়োগ টানতে উদ্যত হয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। কিন্তু ওই জমিতে কিভাবে কি করলে উন্নতি করা যাবে সেই বিষয়েও একপ্রস্থ আলোচনা সেরে ফেলেছে কেন্দ্রীয় সরকার।

এমনিতেই ভারত সরকার বরাবরের জন্য বিভিন্ন বিদেশি সংস্থার কাছে বিনিয়োগ পেতে চেয়েছে কিন্তু সৌদি আরবের তেল থেকে শুরু করে কোরিয়ার স্টিল উত্পাদক সংস্থা সকলেই ভারতের জমির জন্য পিছিয়ে গেছে কিন্তু এবার দীর্ঘদিনের প্রচেষ্টা ও অপেক্ষার ফল মিলতে চলেছে শীঘ্রই। জানা গিয়েছে বেশ কয়েকটি সংস্থা চিনের থেকে ভারতের দিকে ঝুঁকেছে। তাই ভারতও এবার পাল্টা দিতে মরিয়া। তাই বিদেশি বিনিয়োগের জন্য ইতিমধ্যেই সরকার রাজ্যগুলির সঙ্গে পরামর্শও করে ফেলেছে।

খুব শীঘ্রই জমি নির্ধারণ করে সিলমোহর দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন বারক্লেজ ব্যাঙ্কের সিনিয়র অর্থনীতিবিদ রাহুল বাজোরিয়া। তিনি বলেন, ‘‘জমি অধিগ্রহণ প্রক্রিয়া যত স্বচ্ছ এবং দ্রুত হবে, ততই বিদেশি বিনিয়োগ বাড়বে। তার জন্য আরও সুসঙ্গত প্রচেষ্টা প্রয়োজন।’’ তবে এখানেই শেষ নয় ভারতে বিনিয়োগে ইচ্ছুক সংস্থাগুলিকে দ্রুত চিহ্নিত করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে সরকারের তরফে। বিনিয়োগের জন্য রাজ্যগুলিকেও কোমর বেঁধে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

সব খবর সরাসরি পড়তে আমাদের WhatsApp  Telegram  Facebook Group যুক্ত হতে ক্লিক করুন