বিরাট চমক কমিশনের, দ্বিতীয় দফার ভোটে আক্রমণ হলেই গুলি চলানোর নির্দেশ কেন্দ্রীয় বাহিনীকে

গত ২৭শে মার্চ থেকে রাজ্যজুড়ে প্রথম দফার ভোট গ্রহণ পর্ব শুরু হয়েছে। একুশের বিধানসভা নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে করানোর চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করেছে নির্বাচন কমিশন। সেই দায়ভার সম্পূর্ণভাবে চাপানো হয়েছে কেন্দ্রীয় বাহিনীর উপর। তবে প্রথম দফার ভোট গ্রহণ পর্বেই আক্রান্ত হতে হলো কেন্দ্রীয় বাহিনীর সদস্যকে। যে কারণে ক্ষুব্ধ নির্বাচন কমিশন সম্প্রতি নজিরবিহীন এক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করলো।

প্রথম দফার নির্বাচনে অশান্তি লক্ষ্য করে সম্প্রতি কমিশনের তরফ থেকে কেন্দ্রীয় বাহিনীর উদ্দেশ্যে এক বিশেষ নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে। কমিশনের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, বাহিনী যদি মনে করে তাহলে আত্মরক্ষার্থে দ্বিতীয় দফার ভোটগ্রহণপর্ব থেকেই প্রয়োজনে গুলি চালাতে পারবে। কমিশনের তরফ থেকে এমন কড়া নির্দেশিকা জারি হওয়াতে স্বভাবতই সাধারণের মনে আতঙ্ক দানা বেঁধেছে।

প্রসঙ্গত, ভোটের নিয়ম অনুসারে কেন্দ্রীয় বাহিনী প্রয়োজনে গুলি চালাতে পারে। তবে এ পর্যন্ত ভোটের প্রেক্ষাপটে বাহিনীর তরফ থেকে গুলি চালানোর নজির প্রায় নেই বললেই চলে। তবে কমিশনের তরফের এই অনুমোদন নিয়ে বিভিন্ন মহলে উঠছে প্রশ্ন। উল্লেখ্য, প্রথম দফার নির্বাচনের দিন পূর্ব মেদিনীপুরের পটাশপুরের বোমাবাজি কান্ডে রাজ্য পুলিশের এক ওসি এবং এক আধাসেনা জওয়ান গুরুতরভাবে জখম হন।

সেই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতেই দ্বিতীয় দফার ভোট গ্রহণ শুরু হওয়ার আগে কমিশনের তরফ থেকে এই অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। আগামী পয়লা এপ্রিল রাজ্যজুড়ে দ্বিতীয় দফার ভোট গ্রহণ পর্ব শুরু হবে। এই পর্বে গোসাবা, পাথরপ্রতিমা, কাকদ্বীপ, সাগর, তমলুক, পাঁশকুড়া পূর্ব, পাঁশকুড়া পশ্চিম, ময়না, মহিষাদল, হলদিয়া, নন্দীগ্রামসহ আরও অন্যান্য কেন্দ্রগুলিতে নির্বাচন সম্পন্ন হবে।