“ক’রো’নার শেষের শুরু”, টিকাকরণ প্রক্রিয়া শুরু করলেন প্রধানমন্ত্রী, জেনে নিন কি বললেন

আজ থেকে কার্যত দেশজুড়ে করোনার শেষের শুরু হলো। কেন্দ্রের পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী আজ অর্থাৎ ১৬ই জানুয়ারি থেকে দেশজুড়ে গণহারে টিকাকরণ কর্মসূচি শুরু হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এদিন সকাল 10:30 নাগাদ ভার্চুয়াল মাধ্যমে এই টিকাকরণ কর্মসূচির শুভ উদ্বোধন করলেন। কেন্দ্রের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, প্রথম দফার টিকাকরণ কর্মসূচিতে দেশজুড়ে অন্তত ৩ লক্ষ স্বাস্থ্যকর্মীকে টিকা প্রদান করা হবে। দেশের প্রায় তিন হাজার কেন্দ্র থেকে তারা টিকা পাবেন।

সেরাম ইনস্টিটিউটের কোভিশিল্ড এবং ভারত বায়োটেকের কোভ্যাক্সিন, এই দুটি টিকা প্রদানের ছাড়পত্র মিলেছে ভারতে। সেইমতো দুটি ভ্যাকসিনই পাবেন গ্রাহকরা। তবে এক্ষেত্রে তারা তাদের পছন্দমতো ভ্যাকসিন বাছাই করতে পারবেন না। প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদী এদিন ভ্যাকসিনের সূচনা করতে গিয়ে এত কম সময়ের মধ্যে কার্যকরী করোনা প্রতিরোধী ভ্যাকসিন আবিষ্কার করার জন্য বিজ্ঞানীদের প্রশংসা করেছেন।

এদিন তিনি বলেন, যে কোনো ভ্যাকসিন আবিষ্কার করতে গেলে বেশ কয়েক বছর সময় লেগে যায়। তবে করোনাকালে দেশবাসীকে দ্রুত স্বস্তি দিতে যত কম সময়ে সম্ভব, ভ্যাকসিন আবিষ্কার করা সম্ভব হয়েছে। এই দুটি ভ্যাকসিন আবিষ্কারকে কার্যত ভারতের সামর্থ্য, প্রতিভা এবং বৈজ্ঞানিক গবেষণার জলজ্যান্ত উদাহরণ হিসেবেই উল্লেখ করেছেন প্রধানমন্ত্রী। এদিন প্রধানমন্ত্রী ভ্যাকসিন আবিষ্কারের পেছনে চিকিৎসক এবং গবেষকদের নিরলস পরিশ্রমের কথাও উল্লেখ করেছেন।

প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে জানিয়েছেন, প্রথম পর্যায়ে দেশের প্রথম সারির করোনা যোদ্ধাদের টিকা প্রদান করা হচ্ছে। এরপর দেশের ৩০ কোটি মানুষ (যাদের বয়স বেশি এবং যারা জটিল রোগে আক্রান্ত) টিকা পাবেন। তবে ধীরে ধীরে প্রত্যেক দেশবাসীই করোনা টিকা পাবেন বলে আশ্বস্ত করেছেন প্রধানমন্ত্রী।