টেনশন বাড়লো পুদুচুরিতে, আচমকা ইস্তাফা ২ বিধায়কের, সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণে চাপে কংগ্রেস শিবির

বাংলাসহ রাজ্যের চারটি রাজ্য এবং একটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল পুদুচেরিতে বিধানসভা নির্বাচন আসন্ন। এরমধ্যে পুদুচেরিতে রাজ করছে কংগ্রেস। তবে পুদুচেরির বিধানসভা নির্বাচনের আগেই কি পড়ে যাবে কংগ্রেস সরকার? ওই কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি বিবেচনা করলে কিন্তু তেমনই সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে। নির্বাচনের আগেই সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারিয়ে বসেছে পুদুচেরির কংগ্রেস সরকার।

রবিবার সরকারের তরফ থেকে এক কংগ্রেস এবং এক ডিআইএমকে বিধায়ক ইস্তফা দিয়েছেন। এর ফলে ওই কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে বর্তমানে কংগ্রেস সরকারের দলে ১২ জন বিধায়ক অবশিষ্ট রয়েছেন। এদিকে বিরোধী শিবিরের বিধায়কের সংখ্যা ১৪। অর্থাৎ নির্বাচনের পূর্বেই সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারিয়ে ফেলেছে পুদুচেরির কংগ্রেস সরকার।

বিশিষ্ট সংবাদসংস্থা পিটিআই সূত্রে খবর, বিধানসভার অধ্যক্ষ ভি পি শিবাকোলুন্ধুর বাসভবনে গিয়ে রবিবার ইস্তফাপত্র জমা দিয়েছেন রাজভবন কেন্দ্রের বিধায়ক কে লক্ষ্মীনারায়ণ। এরপর সংবাদমাধ্যমে তার সাক্ষাৎকার থেকেই অবশ্য তার বিজেপি যোগের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। তার ইস্তফা প্রদানের পরপরই ডিএমকে বিধায়ক কে ভেঙ্কটেশনও সরকারপক্ষ পরিত্যাগ করেন।

বর্তমান পরিস্থিতিতে পুদুচেরির ৩৩ আসনের বিধানসভায় কংগ্রেস সরকারের পাঁচ জন সদস্য কমে গিয়েছে। ২০১৬ সালে ১৫জন সদস্যসহ পুদুচেরিতে সরকার গড়েছিল কংগ্রেস। বর্তমানে বিরোধী বিজেপি শিবিরের হাতে ১৪জন বিধায়ক আছেন। অতএব সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারিয়ে বিধানসভা নির্বাচনের আগেই পুদুচেরিতে কংগ্রেসের পতন অবশ্যম্ভাবী হয়ে উঠেছে।