অবাক কান্ড: বিয়ের পর হয়নি কোনো সন্তান, দরকার যৌ’ন মিলন জানেনই না এই দম্পতি, শুনুন কাহিনী

পৃথিবীতে কত রকমের মানুষই চোখে পড়ে আমাদের ও তা আমরা অনেকেই জানি এই প্রতিনিয়ত প্রতিদিনের জীবনে, এমনকি সোশ্যাল মিডিয়াতেও তার উদাহরণ দেখতে পাই। সম্প্রতি একটি বিষয়ে তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েছেন এক দম্পতি, যা শুনলে অনেকেই হাসবেন, আবার অনেকেই ভাববেন ইয়ার্কি, আবার অনেকে অবাক হয়ে যাবেন। এক দম্পতি জানেন না যৌন মিলনের কথা, বংশবিস্তারের প্রক্রিয়া সম্পর্কে তাদের কোনো ধারনাই নেই। তারা শুধুমাত্র জানেন যে বিয়ের পর একটা ছেলে একটা মেয়ে একসাথে থাকতে শুরু করলেই নিজে থেকেই তার গর্ভে সন্তানের জন্ম হয়, তেমনই ঘটনা ঘটেছে বাস্তবে। যে অভিজ্ঞতা সবার সাথে ভাগ করে নিয়েছেন ইউনাইটেড কিংডম ন্যাশনাল হেল্প সার্ভিস এন এইচ এস এর এক নার্স, নাম রাচেল হিয়ারসন।

তার চাকরি জীবন সেখানে প্রায় চল্লিশ বছর, তারই একটি অভিজ্ঞতা তিনি তুলে ধরেছেন, তার লেখা একটি বই আছে যেখানে তার স্মৃতিকথা গুলি লিখিত আছে। বইটির নাম হ্যান্ডেল উয়িথ কেয়ার কনফেশন অফ এনএইচএস এন্ড এইচএস হেলথ ভিজিটর, সেখানেই এই দম্পতির কথা লেখা আছে যাদের বেশ কিছু বছর হয়েছে বিবাহিত জীবন কাটিয়েছেন, কিন্তু তারপরেও তাদের কোনো সন্তান না হওয়ায়, তারা হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন এবং শেষপর্যন্ত ডাক্তারের শরণাপন্ন হয়েছেন।

তারা জেনারেল ফিজিশিয়ান এর কাছে যান, কিন্তু ডাক্তার তাদের সাথে কথা বলে জানতে পারেন যে, তারা দাম্পত্য জীবন নিয়ে কিছু জানেনই না, কিভাবে একটি শিশুর জন্ম হয় সেই প্রক্রিয়ায় তারা কিছুই জানেন না। কিন্তু তার পক্ষে তাদেরকে বোঝানো অত্যন্ত বিরম্বনার একটি বিষয় হয়ে যায়, যার ফলে তিনি নার্স হিয়ারসনকে এ দায়িত্ব দেন, তাদের বোঝাবার জন্য।

তখন এই নার্স তাদের সমস্ত কিছু খোলাখুলি আলোচনা করেন তাদের সাথে। কিভাবে ভ্রূণের মাধ্যমে একটি শিশুর জন্ম হয় আস্তে আস্তে বিকাশ ঘটে এবং পূর্ণাঙ্গ শিশুতে পরিণত হয়। সমস্তটাই তিনি তাদের বোঝান, তার বইতে তিনি লিখেছেন যে, কীভাবে তিনি সমস্ত অস্বস্তি কাটিয়ে তাদেরকে বোঝাই বুঝিয়েছেন। এধরনের আরো অনেক স্মৃতির কথা তার বইয়ের পাতায় লেখা রয়েছে। যে বইটির একটি ফটোকপি ও ইনস্টাগ্রামে এবং টুইটারে দেয়া রয়েছে, তা পড়ার আগ্রহ বলে কেউ পড়ে দেখতে পারেন। এই নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় তোলপাড় হয়েছে কারণ এ ধরনের ঘটনা এখনো পর্যন্ত শোনা যায়নি, এখন অব্দি তাই এটি একটি অতি বিরল ঘটনা।