বৈশাখীকে তুলোধনা করলেন সৌমিত্র খাঁয়ের স্ত্রী সুজাতা, বাকযুদ্ধ চ’র’মে

বৈশাখী এবং শোভনের সম্পর্ককে নিয়ে এইবার চরমে বাকযুদ্ধ লেগে গেছে বৈশাখী- সুজাতার মধ্যে। বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় সুজাতা মন্ডলকে কটাক্ষ করে বলেছিলেন, “উনি একজন পরাজিত প্রার্থী। কোন স্ট্যান্ডার্ড নেই”। এইরকম একটি মন্তব্যে ভীষণভাবে ক্ষুব্ধ হয়ে গেছেন সুজাতা মন্ডল। বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের এইরকম কটাক্ষর পাল্টা জবাব দিয়ে বলেন, “বৈশাখীর নাম শুনলে মনে হয় যেন গঙ্গা স্নান করি”।

বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়, সুজাতা মন্ডলকে যেভাবে কটাক্ষ করেছে তার পরিপ্রেক্ষিতে সুজাতা মন্ডল বৈশাখীকে উদ্দেশ্য করে বললেন যে, “আমার পরিচয় রয়েছে, কিন্তু বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর নিজের পরিচয় তৈরি করার জন্য অন্যের স্বামী নিয়ে নোংরামো শুরু করেছে। আমাকে একটা জায়গা তৈরি করতে কখনোই এতটা নিচে নামতে হয়নি। পাবলিকের ঝাঁটা লাথি খাওয়ার ভয়েই সব সময় নিজের সাথে নিরাপত্তাবাহিনীকে রাখেন। আমাকে সবাই ভালোবাসে”।

সুজাতাকে কটাক্ষ করে বৈশাখী বলেছিলেন,”বিধানসভা ভোটে একজন পরাজিত প্রার্থী সুজাতা। মানুষের মার খেয়ে পরাজিত হয়েছে”। সেই কটাক্ষের বিরুদ্ধে বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিশানা করে সুজাতা দেবী বলেন যে, ” অন্যের সম্পত্তি হাতানোর জন্য মতলব করেছিলেন। চেয়ে ছিলেন যেকোনো একটি দলের প্রার্থী হতে, কিন্তু কোনো দলই তাকে প্রার্থী করেনি। বিজেপি থেকে ঘাড় ধাক্কা দিয়েছে, অন্যদিকে তৃণমূল থেকেও”।

মানে বোঝা যাচ্ছে যে, সুজাতা এবং বৈশাখীর দ্বন্দ্ব এখন চরম শিখরে রয়েছে। কেউ এক ইঞ্চি জায়গা ছাড়তে রাজি নয়। সুজাতা দেবীকে কটাক্ষ করে বৈশাখী বন্দোপাধ্যায় বলেছিলেন, “কে সুজাতা? কোনো স্ট্যান্ডার্ড নেই। পাগলের মত সবসময় বকে যায়। আমাদের দেখতে ওনাকে কে বলেছে? আর আমাদের নিয়ে এতো ভাবনা চিন্তা করতেই বা কে বলেছে? আমাদের না দেখলেই হয়। ওনাকে তো কেউ বলেনি চোখ খোলা রেখে আমাদের দেখতে, আমি যেমন সবকিছু ইগনোর করি, তেমনি উনিও করুক”।

এইরকম কটাক্ষে তীব্র জবাব দিয়েছে পাল্টা সুজাতাও। অন্যদিকে বৈশাখী বন্দোপাধ্যায় ফেসবুকে তার নাম বদলে দিয়ে রেখেছেন বৈশাখী শোভন বন্দ্যোপাধ্যায়। অন্যদিকে এই ঘটনার পরেই শোভন চট্টোপাধ্যায় তাঁর স্থাবর অস্থাবর সম্পত্তি লিখে দিয়েছেন তার বান্ধবী বৈশাখীর নামে। অন্যদিকে আবার রত্না দেবী দাবি করছেন তার স্বামীকে মেরে ফেলারও প্ল্যান চলছে, সুতরাং সমস্ত কিছুই নিয়ে রাজনৈতিক মহলের বাইরে চলছে বিশাল বড় এক যুদ্ধ।