বিশেষ প্রযুক্তির ক্যামেরা বসবে লখনউ জুড়ে, মহিলাদের বিপদে দেখলেই দেবে পুলিশকে খবর

হাথরস, বদায়ূঁ-র মতো একের পর এক এলাকার নারী নির্যাতনের ঘটনা সম্প্রতি উত্তরপ্রদেশের প্রশাসনকে প্রবল অস্বস্তির মুখে ফেলে দিয়েছে। যোগী রাজ্যে নারী নিরাপত্তা রীতিমতো প্রশ্নের মুখে। বিভিন্ন মহল থেকে চরম সমালোচিত হয়ে মহিলাদের সুরক্ষার্থে শেষমেষ লখনৌ শহরে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ক্যামেরা লাগানোর পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে প্রশাসন। এই ক্যামেরাগুলি আসলে “স্মার্ট” ক্যামেরা যা মহিলাদের মুখের অভিব্যক্তি বুঝে তাদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করবে!

প্রশাসনিক সূত্রে খবর, লখনৌয়ের অন্তত ২০০টি হটস্পট চিহ্নিত করে এই ক্যামেরা লাগানো হয়েছে। রাজধানী শহরের যে জায়গাগুলিতে মহিলাদের যাতায়াত বেশি মূলত সেখানেই এই ক্যামেরা লাগানো হয়েছে। প্রশাসনের যুক্তি, কোনো মহিলা যদি বিপদে পড়েন, যদি তাকে কেউ ধাওয়া করে তাহলে তার মুখের অভিব্যক্তি বদলে যাবে। সেই অভিব্যক্তি ধরা পড়বে এই স্মার্ট ক্যামেরাতে।

এই এআই স্মার্ট ক্যামেরা মহিলাদের অভিব্যক্তি বুঝে উত্তরপ্রদেশ পুলিশের ইমার্জেন্সি হেল্পলাইন নম্বর ১১২-এ স্বয়ংক্রিয়ভাবে বিপদ বার্তা পৌঁছে দেবে। তবে এমন অভিনব পরিকল্পনার পরেও সমালোচনার হাত থেকে রেহাই পাচ্ছে না যোগী প্রশাসন। উত্তর প্রদেশের প্রত্যন্ত গ্রাম গুলিতে যেখানে মহিলাদের উপর বারংবার বর্বরোচিত অত্যাচার চালানো হচ্ছে সেখানে শুধু লখনৌ শহরে এআই ক্যামেরা বসানো কতটা যুক্তিযুক্ত, সে সম্পর্কে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে।

উপরন্তু এআই ক্যামেরার কার্যকারিতার উপরেও সন্দেহ প্রকাশ করছেন অনেকে। ইন্টারনেটের স্বাধীনতা তথা তথ্যের অধিকার নিয়ে সরব পরামর্শদাতা অনুষ্কা জৈন দাবি করছেন, এমন উদ্যোগ মুর্খামি ছাড়া আর কিছু নয়। কারণ কোনো মহিলা যদি কারোর উপর রেগে যান, কোনো বিষয়ে দুশ্চিন্তা করেন এবং সেই কারণে তার মুখে চিন্তার অভিব্যক্তি ফুটে ওঠে, তাহলে সেই অভিব্যক্তির সঙ্গে বিপদে পড়ার অভিব্যক্তি স্মার্ট ক্যামেরা কিভাবে পৃথক করবে, সে সম্পর্কে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে।