মাত্র ১৬ বছর বয়সে সালমানকে বিয়ে করতেই পাকিস্তান থেকে মুম্বই পালিয়ে আসেন সোমি আলী, জানুন কাহিনী

শুধু বলিউডের মোস্ট এলিজেবল ব্যাচেলরকে বিয়ে করার বাসনা নিয়েই দেশ ছেড়েছিলেন সোমি আলী। পাকিস্তান থেকে নিজের পরিবার পরিজনকে ছেড়ে তিনি চলে আসেন ভারতবর্ষে।

স্বপ্ন ছিল, সালমান খানকে বিয়ে করবেন। সালমানের সিনেমা “ম্যায়নে পেয়ার কিয়া” দেখে এই পাকিস্তানি সুন্দরী এতটাই মোহিত হয়ে গিয়েছিলেন যে সালমানকেই জীবনসঙ্গী হিসেবে পেতে চেয়েছিলেন তিনি।

মাত্র ১৬ বছর বয়সে ভারতবর্ষের আত্মীয় স্বজনদের সঙ্গে দেখা করার বাহানা দিয়ে মুম্বাইয়ে চলে আসেন তিনি। এখানে এসে বেশ কিছু সিনেমাতে কাজও করেছেন তিনি।তবে বলিউডে তার সফর বেশিদিন স্থায়ী হয়নি।

আসলে তার একমাত্র স্বপ্ন ছিল সালমানকে বিয়ে করা। এছাড়া বলিউডে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার চেষ্টা তার ছিল না। মুম্বাইয়ের মায়ামি বিচের কাছে একটি পাঁচতারা হোটেলে থাকতে শুরু করেন তিনি।

এখানেই সালমানের মা সালমা খানের সঙ্গে তার আলাপ হয়। সালমা এরপর সালমানের সঙ্গে তার দেখা করিয়ে দেন। পাক তরুণীর স্বপ্ন আংশিক সত্যি হয়েছিল। সালমানের সঙ্গে তিনি আট বছর সম্পর্কে ছিলেন। এই আর বছরে তারা একে অন্যকে ডেট করেছেন। তবে সোমীর সালমানকে বিয়ে করার স্বপ্ন পূরণ হয়নি। তার আগেই তারা একে অন্যের থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

তবে সালমানের সঙ্গে বিচ্ছেদের পর আর পাকিস্তানে ফিরে যাননি সোমী। ১৯৯৯ সালে ভারত ছেড়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি দেন তিনি। সেখানে গিয়েই উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করেন। বর্তমানে তিনি একজন প্রতিষ্ঠিত লেখিকা এবং সমাজকর্মী হিসেবে নিজের পরিচিতি গড়ে তুলতে পেরেছেন। মার্কিন মুলুকে “নো মোর টিয়ার্স” নামের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের প্রতিষ্ঠা করেছেন তিনি।